হবু শিক্ষকদের জন্যে বড় খবর। শিক্ষক নিয়োগ করতেই হবে, নির্দেশ আদালতের।

নজরবন্দি ব্যুরো: যারা যোগ্য তাদের চাকরির ব্যবস্থা করতে হবে। প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগ সংক্রান্ত সাতটি মামলা একত্রে শুনে বৃহস্পতিবার এই মর্মেই নির্দেশ দিল সুপ্রিম কোর্ট।
কারা যোগ্য লোক, তা বাছাই করতে সুপ্রিম কোর্ট আগে তিন সদস্যের ভেরিফিকেশন কমিটি গঠন করে দিয়েছিল। এবার তার পরিবর্তে নতুন করে পশ্চিমবঙ্গ লিগাল এইড অথরিটি কে পুনরায় খু্ঁটিয়ে দেখার নির্দেশ দিল বিচারপতি ক্যুরিয়ন জোসেফ এবং বিচারপতি এম সান্তনাগৌড়ার ডিভিশন বেঞ্চ। চাকরি প্রার্থীদের কাছে গিয়ে তথ্য নিয়ে আগামী ৯০ দিনের মধ্যে যাবতীয় তথ্য সংগ্রহের কাজ শেষ করারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বিদ্যালয়ের শিক্ষা সচিব, অতিরিক্ত সচিব ও পশ্চিমবঙ্গ প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের চেয়ারম্যান, তিন সদস্যের ভেরিফিকেশন কমিটির কাজে আদালত সন্তুষ্ট বলে আগের দিনের শুনানিতেই জানিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট। ওই সব ব্যক্তিদের কাছে না গিয়ে রিপোর্ট দেখে তা বাড়িতে বসে তৈরি মনে হচ্ছে বলে রাজ্যকে কিছুদিন আগে সমালোচনার মুখে ফেলেছিল বিচারপতির বেঞ্চ। সেই মতো আজ রিপোর্ট জমা দেওয়ার কথা ছিল। আর এবার পশ্চিমবঙ্গ সরকার আবার চার সপ্তাহ সময় চায়। কিন্তু আদালত তা অনুমোদন করেনি। আগেকার দিনের পাঠশালা প্রথা উঠে যাওয়ার পর এই রাজ্যে অনেকে প্রাথমিকে শিক্ষকতার চাকরি পান। কিন্তু কয়েক হাজার ব্যক্তি চাকরি পাননি এখনও। ওই সব প্রার্থীদের বয়স, শিক্ষাগত যোগ্যতা ইত্যাদি নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। চাকরির দাবিতে যথারীতি আদালতের দ্বারস্থ হন তাঁরা। প্রায় ২০০৮ সাল থেকে এই মামলা চলে আসছে। যোগ্য প্রার্থীদের বাছাই করতে সুপ্রিম কোর্ট তিন সদস্যের ভেরিফিকেশন কমিটি গড়ে দেয়। কিন্তু কমিটি তার রিপোর্টে উল্লেখ করে, "আবেদনকারীদের কেউই আর প্রাথমিকে শিক্ষকতার যোগ্য নয়।" আর এবার সেই রিপোর্ট বাতিল করে দিয়ে যোগ্য প্রার্থীদের বাছতে নতুন ব্যবস্থার নির্দেশ দিল দেশের সর্বোচ্চ আদালত।
Bengali Movie Air Hostess

DESCRIPTION OF IMAGE
Loading...

No comments

Theme images by caracterdesign. Powered by Blogger.