পুনঃ মূষিক ভব, কাল থেকে আবার...দিদি...হাইকোর্ট আর হাইতোলা!

অর্ক সানা,(সম্পাদক, নজরবন্দি): নতুন বছর এসেছে, উৎসব প্রিয় বাঙালি তাঁর স্বাভাবিক জীবন যাত্রা থেকে বেরিয়ে ফিরিঙ্গি স্টাইলে পালন করেছে বর্ষবরন উৎসব। রাত ১২টা বাজার সাথে সাথে কানফাটানো বাজির শব্দে চমকে উঠে একগাল হেসেছে বাঙালি, না কালিপুজো বা সবেবরাত নয় এতো বর্ষবরন। টিভিতে ঝক্মকে আলোয় ৫তারা হোটেলের বেলি ড্যান্স নতুন প্রাপ্তি। নাচ গানা খানা পিনা ডিজে বক্স।
 বাঙালি পার্কস্ট্রিটে হেঁটেছে রাতভোর, আনন্দ খুঁজতে। কি দেখছে, কেন দেখছে তা নিয়ে নিজেরাই সন্দিহান। কিন্তু ঐযে পিছিয়ে পড়লে চলবে না। হাঁটতে হবে, সময়ের সাথে পা মিলিয়ে। যাই হোক ৩১ ডিসেম্বরের রাত থেকে ১লা জানুয়ারির ভোর পর্যন্ত 'আনন্দ উৎসব' করে বাঙালি আড়মোড়া ভেঙেছে বেলা গড়িয়ে। কাল থেকে আবার পুনঃ মূষিক ভব।
রাজ্যের কিছু ঘটনা মানেই হাইকোর্ট! ২০১৮ তে হাইকোর্ট দেখে দেখে বাঙালি মাছ ভাত খাওয়ার মত অভ্যস্ত হয়ে গেছে। হাইকোর্টে সব থেকে মজার মামলা হল রাজ্য সরকারী কর্মীদের ডিএ অর্থাৎ মহার্ঘ্য ভাতার মামলা। এই মামলা অনেটা রাজ নৈতিক স্লোগানের মত, চলছে না চলবে না। আর বাস্তবটা নচিকেতার গানের মত চলছে না "চলবে না তবু তাই হয়ে যায়"। ঘেউ ঘেউ, থেকে দয়ার দান তৃণমূল সুপ্রিমো থেকে রাজ্যসরকারের এমন সুন্দর বিশেষণে ভূষিত হয়েছেন রাজ্য সরকারী কর্মীরা। ডিএ কে দয়ার দান বলে অভিহিত করেছে SAT -ও! যাই হোক দিন যায় দিন আসে! এখন পর্যন্ত ৩৮টা ডেট শুনানি হওয়ার পর হাইকোর্ট বুঝতে পারে ডিএ বা মহার্ঘ্য ভাতা দয়ার দান নয়! ডিএ নাকি সরকারী কর্মিদের অধিকার। তাই আবার মামলা ফেরত গেছে SAT-এ। এছাড়াও শিক্ষক নিয়োগের মামলা, চাকরি পেয়ে জয়েন করতে না পাড়ার মামলা, রথ যাত্রার মামলা, যোগ্যতা অনুযায়ী বেতনের মামলা! ওহহ...
তাই নববর্ষের রেস কাটিয়ে বাঙালি আবার আড়মোড়া ভেঙে হাই তুলতে তুলতে কাল থেকে তাকিয়ে থাকবে হাইকোর্টের দিকে। মুখ্যমন্ত্রী কি পেরেছেন কি পারেননি তা নিয়ে বিতর্ক চলতে থাকবে কিন্তু দিদি যে হাইকোর্ট টা বাঙালি-কে ভাল চিনিয়ে দিয়েছেন তা তর্কাতীত!
DESCRIPTION OF IMAGE
Loading...

No comments

Theme images by caracterdesign. Powered by Blogger.