Header Ads

মেনস্ট্রীম মিডিয়া নয়,সোশ্যাল মিডিয়ার ছোট সংবাদ মাধ্যমেই এখন খবরের সত্যতা খুঁজছেন পাঠক৷

অরুনাভ সেনঃ সত্যিই সত্যিই কি আড্ডার ধরনটা বদলে দিচ্ছে ফেসবুক!সমমনস্ক বা ভিন্নমনস্ক! এক ঝাঁক নারী পুরুষ,অবশ্যই তারা সবাই সমবয়সী এমনটা নয়, বরং বিভিন্ন বয়সের অসংখ্য মানুষকে এক লহমায় বন্ধুত্বের বন্ধনে আবদ্ধ করেছে ফেসবুক৷
এক বিষয়,ভিন্ন মতামতে ভরে যাচ্ছে দেওয়াল,কমেন্ট বক্স৷কখনও সহমত,কখনও বা কমেন্ট বক্সে তুমুল বিতর্ক৷হোক না কোনও বিষয়ে সুস্থ বিতর্ক৷সে বিষয় যাই হোক না কেন৷রাজনীতি হতে পারে,সমাজনীতি হতে পারে,অর্থনীতি হতে পারে৷হতে পারে ফুটবল,হতে পারে ক্রিকেট৷হতে পারে কবিতা,গল্প,ছড়া৷একটু যদি মতের বিনিময় হয় ক্ষতি কি?আগে যে আড্ডাটা মানুষ দিতেন চায়ের দোকানে,ক্লাবের বারান্দায়,অথবা খেলার মাঠে,পার্কে যেখানে কেবলমাত্র পুরুষদেরই মূলত একচ্ছত্র আধিপত্য ছিল৷মহিলারাও আড্ডা দিতেন৷তবে ব্যতিক্রমী কিছু ক্ষেত্র ছাড়া তাদের আড্ডার পরিষরটা তুলনামূলক কমই হয়ত ছিল!
কি জাতীয় ক্ষেত্র,কি রাজ্য যে খবর গুলি মেনস্ট্রীম মিডিয়ায় আসে সেগুলির মধ্যে কি সম্পূর্ন নিরপেক্ষতার ছোঁয়া আছে?উত্তর একেবারেই নেই৷বরং মিডিয়া হাউসগুলি পাঠকদের আইওয়াশ করছে তাদের মত করে৷মানুষ সব বুঝতে পারছেন,তারাও বুঝতে পারছেন খবরটি ততটুকু করা যাবে যেখানে সাপ মরবে,বা লাঠি ভাঙবে না৷তাহলে মানুষ যাবেন কোথায়?সত্যি-মিথ্যের ফারাকটা করা ভীষন কঠিন হয়ে যাচ্ছে পাঠকের কাছে৷তবুও স্বস্তির অনেক প্রতিকূলতা,সীমিত সার্থের মধ্যেও অনেক ছোট সংবাদমাধ্যম যেগুলির আধিপত্য সোশ্যাল মিডিয়ায় তারা চেষ্টা করছেন চোখরাঙানি উপেক্ষা করে মানুষের কাছে সঠিক খবরটি পৌঁছে দেওয়ার৷এরপরেও কেন সোশ্যাল মিডিয়ার গুনগান কেন গাইবে না মানুষ?
DESCRIPTION OF IMAGE

No comments

Theme images by sndr. Powered by Blogger.