দলে সুযোগ না পেয়ে নির্বাচক কমিটির প্রধানকে বেধড়ক মার ক্রিকেটারের!

নজরবন্দি ব্যুরোঃ ট্রায়ালে এসে দলে সুযোগ না পাওয়ায় নির্বাচক কমিটির প্রধানকে মেরে মাথা ফাটিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠল রাজধানীতে।
সোমবার দিল্লির স্টিফেন গ্রাউন্ডে মুস্তাক আলি ট্রফির জন্য অনূর্ধ্ব ২৩ দলের ট্রায়াল নিতে গিয়েছিলেন ডিডিসিএ সিনিয়র সিলেকশন কমিটির চেয়ারম্যান প্রাক্তন জাতীয় ক্রিকেটার অমিত ভান্ডারী। ট্রায়াল চলাকালীন তাঁর উপর চড়াও হয় এক দল অজ্ঞাত পরিচয় যুবক। শুধু তাই নয়, নীতীশ রানা-ধ্রুব শোরের মতো দিল্লি রঞ্জি ক্রিকেটাররা প্রতিবাদ করতে গেলে তাঁদের হুমকি দেওয়া হল, চুপচাপ সরে না গেলে গুলি চালিয়ে দেওয়া হবে!পুরো ঘটনাটা কী? নয়াদিল্লির সেন্ট স্টিফেনসের মাঠে এ দিন আসন্ন সৈয়দ মুস্তাক আলি টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টের জন্য প্রস্তুতি চলছিল। প্রাথমিক টিমটা ট্রায়াল ম্যাচ খেলছিল নিজেদের মধ্যে।

 দিল্লির নির্বাচক প্রধান অমিত ভান্ডারীও ছিলেন সেখানে। আচমকাই অনুজ দেড়া নামের দিল্লির এক অনূর্ধ্ব ২৩ ক্রিকেটার এসে নির্বাচক প্রধানের কাছে উষ্মা দেখিয়ে জানতে চান, কোন যুক্তিতে তাঁকে অনূর্ধ্ব ২৩ টিম থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে? জুনিয়র ক্রিকেটারের ঔদ্ধত্য দেখে মেজাজ হারান অমিত। কিন্তু, অনুজ নামক সেই ক্রিকেটার তাতে তো চুপ করে যানইনি, উলটে হুমকি দেন তিনি কিছুক্ষণের মধ্যেই শোধ নেবেন! এবং কিছুক্ষণের মধ্যেই জনা পনেরো ছেলে নিয়ে ফের মাঠে উপস্থিত হন অনুজ। প্রত্যেকের হাতেই লাঠিসোঁটা থেকে হকি স্টিক সবই ছিল। পুরো হিন্দি সিনেমার কায়দায় নির্বাচক প্রধানকে পেটানোর তোড়জোড় শুরু হয়ে যায়। অমিত ভান্ডারীর অবস্থা দেখে তাঁকে বাঁচাতে ছুটে আসেন নীতিশ রানারা।


 শোনা গেল, তাঁরাও পাল্টা ব্যাট, উইকেট নিয়ে সার বেঁধে দাঁড়িয়ে যান! কিন্তু অনুজের সঙ্গে থাকা গুণ্ডাবাহিনী থেকে শাসানো হয়, ক্রিকেটাররা সরে না গেলে তাঁদের কপালে প্রচণ্ড দুঃখ আছে। প্রয়োজনে গুলি চালানোর ব্যাপারে দু'বার ভাবা হবে না! প্রাণভয়ে ভীত ক্রিকেটাররা এরপর পিছু হঠে যান। এবং গুণ্ডাবাহিনী প্রবল উদ্যমে তাড়া করে অমিতকে। যা খবর, তার হাঁটু এবং মাথা, দু'জায়গাতেই হকি স্টিক দিয়ে প্রচণ্ড জোরে আঘাত করা হয়। পরে হাসপাতালে নিয়ে গেলে মাথায় চারটে সেলাই করতে হয় তাঁর।
Loading...

No comments

Theme images by caracterdesign. Powered by Blogger.