গ্রাজুয়েট ছাড়া যেন ভোটে প্রার্থী করা না হয়। সুপ্রিম কোর্টে আবেদন বিজেপি নেতার।

নজরবন্দি ব্যুরোঃ যে কোন কাজের জন্য একটা শিক্ষাগত যোগ্যতার প্রয়োজন হয়। সেটা আমারা সকলেই জানি। কিন্তু আমাদের দেশে রাজনৈতিক ময়দানে শিক্ষাটাকে সেভাবে গুরুত্ব দেওয়া হয়নি কোনোদিনই।
যার কারণে আমার দেখি অনেক নিরক্ষর মানুষ ভোটে দাঁড়ান তারপর তাঁরা জেতেন এবং দেশের বিভিন্ন পদে বসে পরেন। অথচ সেটা হওয়া বাঞ্ছনীয় নয়। কারণ দেশ চালাতে গেলে নেতা বেক্তির শিক্ষিত হওয়াটা জরুরী। কিন্তু আমারা দেখেছি সেটা এই ভারতবর্ষে হয় না। তবে দেরীতে হলেও এই ব্যাপারটা নিয়ে অবশেষে পদক্ষেপ নিয়েছেন এক বেক্তি। তিনি বিজেপি নেতা অস্বীন উপাধ্যায়।

তিনি সুপ্রিমকোর্টে আবেদন করেছেন ভোটে দাঁড়ানো প্রার্থী কে অবশ্যই গ্রাজুয়েট হওয়া উচিত এবং তার বয়স যাতে কোন ভাবেই ৭৫ বছরের বেশি না হয়।এর পাশাপাশি ওই আবেদনে সুপ্রিমকোর্টের কাছে তিনি আরও লিখেছেন যে সমস্ত বিধায়কদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা রয়েছে তাদের জন্য বিশেষ আদালতে র ব্যাবস্থা করা হোক।অস্বিনী বাবুর কথায় বিধায়ক সাংসদ রা ভোটে জেতার পর যে যে সুবিধা পান তাতে উচিত সেখানে কোনো নিরক্ষর ব্যাক্তি জানো পদ না পান।
সুপ্রিম কোর্টের আবেদনে আরও বলা হয়েছে আমাদের দেশে অনেক পঞ্চায়েত ও পুরসভায় নিরক্ষর রা প্রার্থী হিসেবে দাঁড়ান সেটা যাতে না হয় তার ও আবেদন করা হয়েছে।বিজেপি নেতা আরও বলেন একজন শিক্ষিকা ব্যাক্তি বিধায়ক বা সংসদ হওয়ার যোগ্য না হতে পারে কিন্তু সেই জায়গায় কোনো নিরক্ষর ব্যাক্তিকে নির্বাচিত করা দেশের পক্ষে ক্ষতিকর।কিন্তু এই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞ রা মনে করছেন লালকৃষ্ণ আদবানি মুরলি মনোহর জোশি কে নির্বাচনে প্রার্থী করা নিয়ে বার্তা দিয়েছে বিজেপি।সেক্ষেত্রে বিজেপি র এই নেতার শিক্ষা র সাথে সাথে বয়সের ব্যাপারটাও উল্লেখ করা কোনো রাজনৈতিক পদক্ষেপ নয় তো
Loading...

No comments

Theme images by caracterdesign. Powered by Blogger.