শেষ হচ্ছে ষষ্ঠ বেতন কমিশনের মেয়াদ, তারপর?

নজরবন্দি ব্যুরোঃ ছ’মাসের বেতন কমিশন। ৪২মাস গড়িয়ে গেছে। বকেয়া রয়েছে বিরাট পরিমাণ মহার্ঘ ভাতা। এর ওপর রয়েছে চোখরাঙানি। প্রতিহিংসার বদলি। রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের বেতন সংক্রান্ত অবস্থার কোনও পরিবর্তন ২০১১ সালের পর আর হয়নি। মহার্ঘভাতার দাবি নিয়ে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর কাছে বহুবার দরবার করে কোনও লাভ না হওয়ায় কর্মচারীরা আদালতে গেছেন। কর্মচারীদের মহার্ঘভাতা দেওয়ার ব্যাপারে আদালতের নির্দেশ কার্যকরী করতেও রাজ্য সরকারের কোনও সদিচ্ছাও অমিল৷ আর এই নিয়ে বাড়ছে ক্ষোভ৷ দেশের স্বাধীনতার পর থেকে ১৯৭৭ সাল পর্যন্ত এরাজ্যের কর্মচারীরা কোনদিন বেতন কমিশনের মুখ দেখেননি।

 ১৯৭৭ সালে বাম সরকারের আমলে পাঁচটি বেতন কমিশন করা হয়৷ তৃণমূল কংগ্রেসের রাজ্য সরকার ষষ্ঠ বেতন কমিশন তৈরি করেছে। সেই বেতন কমিশনের সুপারিশ ৪২ মাসেও জমা পড়েনি। রাজ্য সরকারের কমিশনের মেয়াদ বাড়িয়ে দিচ্ছে। আগামী ২৬ মে সেই বাড়ানো সময়ের মেয়াদ আবার শেষ হয়ে যাবে। তারপর? আবার বাড়ানো হবে কমিশনের মেয়াদ? ২৩ মে লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল৷ লোকসভা ভোটের ফলাফল দেখার পরই কী পরবর্তী সিদ্ধান্ত? নানন প্রশ্নে দিন কাটাচ্ছেন বাংলাক কয়েক লক্ষ সরকারি কর্মী৷ যদিও, ষষ্ঠ বেতন কমিশন চালু না হওয়ায় ইতিমধ্যেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারকে বেশ কয়েক বার খোঁচা দিয়েছেন নরেন্দ্র মোদি৷ বিজেপি ক্ষমতায় এলে সপ্তম বেতন কমিশন কার্যকর করার আশ্বাসও দিয়েছেন নমো৷ ফলে, এই পরিস্থিতি আদৌ কি কোনও ভাল খবর আসবে কি না, তা নিয়ে কর্মীমহলে বাড়ছে উদ্বেগ৷

 দেশের অধিকাংশ রাজ্যে যখন মহার্ঘভাতা বকেয়া ফেলে রাখা নেই, অধিকাংশ রাজ্যের সরকারি কর্মচারীরা যখন বেতন কমিশনের সুপারিশ অনুযায়ী বর্ধিত বেতন পাচ্ছেন তখন এরাজ্যের সরকারি কর্মচারীরা বঞ্চিত হচ্ছেন কেন? প্রশ্ন সরকারি কর্মীমহলে৷ পরিসংখ্যান বলছে, এরাজ্যের কর্মচারীরা এখনও ৪১ শতাংশ মহার্ঘভাতা কম পান। একই সঙ্গে ষষ্ঠ বেতন কমিশনের সুপারিশ না মেলায় পঞ্চম বেতন কমিশনের মেয়াদ শেষ হওয়ার ফলে দীর্ঘ কয়েক বছর রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের বেতন বৃদ্ধি হয়নি।

বর্তমান বেতন তার সঙ্গে মহার্ঘভাতা এবং তার সঙ্গে বেতন কমিশনের বেতন বৃদ্ধির বুস্টিংয়ের সুযোগ সুবিধা থেকে এরাজ্যের কর্মচারীরা বঞ্চিত রয়েছেন। একদিকে অভিরূপ সরকারের বেতন কমিশনকে সরিয়ে রাখা অন্যদিকে মহার্ঘভাতা দেওয়া সংক্রান্ত কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশের মান্যতা না দেওয়ার কৌশল একই সঙ্গে জারি রয়েছে।
Loading...

No comments

Theme images by caracterdesign. Powered by Blogger.