মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ মানেননি ডাক্তাররা, স্বাস্থ্যমন্ত্রীর সম্মান বাঁচাতে ইস্তফা দিলেন NRS-এর অধ্যক্ষ ও সুপার?

নজরবন্দি ব্যুরো: বেশ কয়েকদিন ধরে লাগাতার অচলবস্তা চলছে এনআরএসে। কর্মবিরতির ডাক দিয়েছে জুনিয়র ডাক্তাররা। এইরকম পরিস্থিতির মধ্যে এনআরএস মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ পদ থেকে ইস্তফা দিলেন শৈবাল মুখোপাধ্যায়। সহকারী অধ্যক্ষের পদ থেকেও ইস্তফা দিয়েছেন সৌরভ চট্টোপাধ্যায়। ইতিমধ্যে তাঁদের ইস্তফা পত্র স্বাস্থ্য-শিক্ষা সচিবকে পাঠিয়ে দিয়েছেন।
যদিও তা এখনও পর্যন্ত গৃহীত হয়েছে কিনা তা নিয়ে কোন খবর পাওয়া যায় নি।

চার ঘণ্টার মধ্যে সমস্ত সরকারি হাসপাতাল থেকে কর্মবিরতি তুলে নিতে হবে। এমন হুমকি দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। কিন্তু এরপরেও ছবিটা বদলায়নি। বরঞ্চ বিদ্রোহের আগুন আরও ভয়ঙ্কর আকার নেয়। এই পরিস্থিতিতে কার্যত নিজেদের কাঁধে ব্যর্থতার দায় নিয়ে পদত্যাগ করলেন অধ্যক্ষ ও সহ-অধ্যক্ষ।

ডাক্তার নিগ্রহের ঘটনায় প্রতিবাদে সরব হয়েছিল জুনিয়র ডাক্তাররা। একাধিক দাবিতে লাগাতার কর্মবিরতি শুরু করেছেন জুনিয়র ডাক্তাররা। এনআরএসের ঘটনার আঁচ ইতিমধ্যে কলকাতা সহ গোটা রাজ্যে ছড়িয়ে পড়েছে। এই অবস্থায় বিপদে পড়েছেন রোগী ও তাঁদের পরিবাদের লোকজন। গত তিনদিন ধরে চলছে জুনিয়র ডাক্তারদের কর্মবিরতি। এই অবস্থায় আজ বৃহস্পতিবার এসএসকেএম যান  স্বাস্থ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আজ দুপুরে এসএসকেএম হাসপাতালে পৌঁছন তৃণমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী। এসএসকেএমে ঢুকে আন্দোলনরত ডাক্তারদের কার্যত হুমকি দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, চার ঘণ্টার মধ্যে মধ্যে কাজ যোগ না দিলে কড়া ব্যবস্থা নেবে রাজ্য।
সবরকমের সুযোগ থেকে তাদের বঞ্চিত করা হবে। এর পরেই মুখ্যমন্ত্রী জুনিয়র ডাক্তারদের বহিরাগত তকমা দিয়ে হোস্টেল ছেড়ে বেরিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দেন। তাঁর এই মন্তব্যে নতুন করে ডাক্তারদের মধ্যে অসন্তোষ বহু গুন বাড়িয়ে দেয়। ইস্তফা দেওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন ডাক্তাররা। এক্ষেত্রে জুনিয়র ডাক্তারদের শুরে শুর মিলিয়েছেন সিনিয়র ডাক্তাররা। অপরদিকে মুখ্যমন্ত্রী হুমকির পরেই জুনিয়র ডাক্তারদের পাশে দাঁড়িয়েছেন এসএসকেএমের নার্সরাও।

এই জুনিয়র ডাক্তারদের আন্দোলনকে কার্যত সমর্থন জানিয়েছে বিজেপি নেতা মুকুল রায়। যদিও মুকুল রায় অভিযোগ করেছেন এই জুনিয়র ডাক্তার নিগ্রহের সঙ্গে তৃণমূলের সমর্থকরা যুক্ত আছেন। আর সেই কারণে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ভয় পাচ্ছেন। 
Loading...

No comments

Theme images by caracterdesign. Powered by Blogger.