Header Ads

লাল আবিরে মিষ্টিমুখ , অনশণকারীদের সংগ্রামী অভিনন্দন জানাল শিক্ষক ঐক্য মঞ্চ!

নজরবন্দি ব্যুরোঃ ১৩ দিন অনশন আর ১৪ দিন ধর্নার মাথায় আজ অনশন প্রত্যাহার করল অরাজনৈতিক শিক্ষক সংগঠন উস্থি ইউনাইটেড প্রাইমারী টিচার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোশিয়েশন। যোগ্যতা অনুযায়ী বেতনের দাবীতে অনশন পাশাপাশি অনৈতিক ভাবে ট্রান্সফার করে দেওয়া ১৪ জন শিক্ষককে পুনরায় নিজের নিজের জেলায় ফিরিয়ে আনার দাবীতে অনশন চলছিল।গতকাল দলীয় শিক্ষক সংগঠনের সভায় বক্তব্য রাখেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। কিন্তু সেখানে তিনি ডাকেননি অনশনকারী শিক্ষক সংগঠনকে। সেই সভা থেবে বেতন কাঠামো সংশোধনের কথা জানালেও তা ছিল ধোঁয়াশা পূর্ণ বলে দাবি শিক্ষকদের। তিনি জানিয়েছেন, প্রাথমিক শিক্ষকদের গ্রেড পে বাড়িয়ে ৩২০০ টাকা করা হচ্ছে। তবে তা যাতে ৩৬০০ টাকা করা যায় কিনা তা তিনি দেখছেন।
শেষপর্যন্ত সব জল্পনার অবসান ঘটিয়ে বেতন বৃদ্ধি হল শিক্ষকদের। এক ঝলকে দেখে নিন কত বাড়ল বেতন। শিক্ষক তন্ময় ঘোষ এক হিসেবের মাধ্যমে নজরবন্দি কে জানিয়েছেন।  পে ব্যান্ড ৩ আর ট্রেন্ড টিচার দের গ্রেড পে ৩৬০০ টাকা হলে প্রথম যিনি চাকরি পাবেন তার প্রথম মাসের বেতন নিম্নরূপ হবার কথা।
পুরনো স্কেল অনুযায়ীঃ ৬২৪০+গ্রেড পে ২৬০০ =  বেসিক পে ৮৮৪০ + ১৪০%(D.A+H.R.A) = ১২৩৭৬ + ৩০০ (M.A) = ২১৫১৬(Gross).
 নতুন নির্দেশিকা অনুযায়ী বেতন হবে, ৭৪৪০ + গ্রেড পে ৩৬০০ =  ১১০৪০(basic) +১৪০% (D.A+H.R.A) = ১৫৪৫৬ + ৩০০(M.A)= ২৬৭৯৬ টাকা(Gross)।
অর্থাৎ বেতন বাড়লঃ ২৬৭৯৬-২১৫১৬ = ৫২৮০ টাকা।
পিআরটি স্কেল না পেলেও, আপাতত এই ঘোষনায় খুশি শিক্ষক মহল। উস্থি সংগঠনের দাবি অনুযায়ী অনৈতিক ভাবে ট্রান্সফার করে দেওয়া ১৪ জন শিক্ষককে পুনরায় নিজের নিজের জেলায় ফিরিয়ে আনা হচ্ছে, সেই কারনেই তুলে নেওয়া হল অনশন।
শিক্ষক শিক্ষাকর্মী শিক্ষানুরাগী ঐক্যমঞ্চের রাজ্য সম্পাদক কিংকর অধিকারী এক বার্তায় জানিয়েছে, "দীর্ঘ আন্দোলনের ফলে প্রাথমিক শিক্ষকদের ন্যায্য দাবি সম্পূর্ণ না হলেও অনেকাংশ মানতে বাধ্য হল রাজ্য সরকার। এই প্রসঙ্গে শিক্ষক শিক্ষাকর্মী শিক্ষানুরাগী ঐক্য মঞ্চের রাজ্য সম্পাদক কিংকর অধিকারী এক বিবৃতিতে জানান, "এই জয় আন্দোলন ছাড়া কোনোভাবেই সম্ভব ছিল না। আবার প্রমাণ হল দাবি আদায়ের একমাত্র পথ সর্বাত্মক আন্দোলন। আন্দোলনকারীদের সকলকে জানাই সংগ্রামী অভিনন্দন। ভোটের মাধ্যমে এমএলএ, এমপিরা জিতে কিন্তু আমাদেরকে লড়াই, আন্দোলন করেই দাবি আদায় করতে হয়। তাই সকল শিক্ষক শিক্ষানুরাগী ব্যক্তিবর্গের কাছে আবেদন ভোটে নয়, আসুন সর্বাত্মক লড়াই আন্দোলনের মধ্য দিয়েই ন্যায্য দাবি আদায় করি। এটাই সাধারণ মানুষ হিসাবে আমাদের একমাত্র রাস্তা।"
Loading...

No comments

Theme images by enjoynz. Powered by Blogger.