সুপ্রিম কোর্টে যাওয়ার সম্ভাবনা, ডিএ মামলার রায়ের সার্টিফায়েড কপিই তোলেনি রাজ্য!

নজরবন্দি ব্যুরোঃ মহার্ঘ্য ভাতা আর পে কমিশন নিয়ে রাজ্য সরকারের প্রতি ব্যাপক ক্ষোভ রয়েছে রাজ্য সরকারি কর্মীদের মধ্যে। কেন্দ্রে যেখানে সপ্তম পে কমিশন চলছে রাজ্য সেখানে আটকে আছে পাঁচে! মহার্ঘ্য ভাতাতেও রয়েছে ৫৬% ফারাক। একুশের মঞ্চে ভাষন দিতে গিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ইঙ্গিত দেন নতুন বেতন কমিশনের। তিনি জানিয়েদেন পে কমিশনের রিপোর্ট পেলেই সঙ্গে সঙ্গে তা কার্যকর করতে উদ্যোগ নেওয়া হবে। রাজ্য সরকার সাধ্যমত চেষ্টা করবে কর্মচারীদের বেতন বৃদ্ধির।
পাশাপাশি বকেয়া ডিএ-র দাবিতে আদালতে মামলা করা রাজ্য সরকারি কর্মীদের জয় হয়েছে কিছুদিন আগেই। দেশের ক্রেতা মূল্যসূচক বা সিপিআই এর উপর ভিত্তি করে এ রাজ্যের সরকারি কর্মীদের মহার্ঘ ভাতা দিতে নির্দেশ দিয়েছে স্টেট অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ ট্রাইবুনাল বকলমে স্যাট। শুধু তাই নয় স্যাট জানিয়েছে, কত ডিএ বকেয়া, নির্ধারণ করতে হবে ৩ মাসের মধ্যে আর দিতে হবে ৬ মাসের মধ্যে! এই অবস্থায়  কনফেডারেশন অফ স্টেট গভমেন্ট এমপ্লয়িজের পক্ষ থেকে নবান্ন মুখ্য সচিব মলয় দে ও অর্থ সচিবের কাছে রাজ্য সরকারি কর্মীদের মহার্ঘ ভাতা মামলায় স্টেট অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ ট্রাইব্যুনালের রায়ের সার্টিফাইড কপি জমা দিয়েছেন মামলাকারী তথা কনফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক মলয় মুখোপাধ্যায়।
মলয় মুখোপাধ্যায় জানিয়েছেন, সরকার এতটাই উদাসীন ২৬শে জুলাই থেকে এতদিন হয়ে যাওয়ার পরেও রায়ের সার্টিফায়েড কপিটাই তোলেনি, তাই বাধ্য হয়ে আমরাই তা জমা করলাম।
অন্যদিকে সূত্রের খবর রাজ্যসরকার স্যাটের রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালত অর্থাৎ সুপ্রিম কোর্টে যাওয়ার কথা ভাবছে।  হাতে ৩ মাস সময় রয়েছে তার আগেই সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করতে পারে রাজ্য সরকার। এক সরকারি কর্মচারীর কথায় ডিএ দেওয়ার টাকা নেই কিন্তু জনগনের করের টাকা দিয়ে ডিএ মামলায় রায়ের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে মামলা লড়তে পারে রাজ্য!
এই প্রসঙ্গে মলয় মুখোপাধ্যায় বলেন, রাজ্য সুপ্রিম কোর্টে গেলেও হার অবশ্যম্ভাবী। জয় আমাদেরই হবে। 
DESCRIPTION OF IMAGE
Loading...

No comments

Theme images by caracterdesign. Powered by Blogger.