Header Ads

TGT স্কেল,রাজ্য হাইকোর্টের নির্দেশ না মানলে বৃহত্তর অরাজনৈতিক আন্দোলনে নামবে BGTA

নজরবন্দি ব্যুরোঃ পশ্চিমবঙ্গের সরকার পোষিত ও সরকারি সাহায্য প্রাপ্ত স্কুলের মাধ্যমিক স্তরের জন্য নিযুক্ত পাস গ্র্যাজুয়েট শিক্ষক গন রোপা ২০০৯ এ চূড়ান্ত বেতন বৈষম্যের শিকার বলে অভিযোগ উঠেছে বারবার। সর্ব ভারতীয় স্তরে ষষ্ঠ কেন্দ্রীয় বেতন কমিশনের সুপারিশ অনুযায়ী (যা রোপা ২০০৯ এর সমতুল্য ) যেখানে ট্রেন্ড গ্র্যাজুয়েট ক্যাটেগরী শিক্ষক দের পে স্কেল ৯৩০০-৩৪৮০০, গ্রেড পে - ৪৬০০টাকা দেওয়া হয় সেখানে পশ্চিমবঙ্গের এই ক্যাটেগরী শিক্ষক দের(পশ্চিমবঙ্গে এদের পাস গ্র্যাজুয়েট ক্যাটেগরী শিক্ষক বলা হয়) পে স্কেল ৭১০০-৩৭৬০০, গ্রেড পে ৪১০০টাকা দেওয়া হয়।সরকারি কর্মী..চাকরিপ্রার্থী, টাকা নেই..দানছত্র এবং মুখ্যমন্ত্রী! #Editorial
অথচ পোস্ট গ্র্যাজুয়েট শিক্ষক দের ক্ষেত্রে সর্বভারতীয় স্তরের সঙ্গে সাযুজ্য যুক্ত পে স্কেল ও গ্রেড পে দেওয়া হয়েছিল। আরো অভিযোগ যে সর্বভারতীয় স্তরে একজন পোস্ট গ্র্যাজুয়েট শিক্ষক ও ট্রেন্ড গ্র্যাজুয়েট শিক্ষকের বেসিক পে তে পার্থক্য ছিল ১০১০টাকা সেই পার্থক্য পশ্চিমবঙ্গে ৩২১০টাকা রাখা হয়। এই বৈষম্যের বিরুদ্ধে গ্র্যাজুয়েট ক্যাটেগরী শিক্ষক দের সংগঠন বৃহত্তর গ্র্যাজুয়েট টিচার্স এসোসিয়েশনের করা মামলা বিচারপতি মৌসুমী ভট্টাচার্য্য এর এজলাসে চারদিন শুনানি হয়। মাননীয়া বিচারপতি গত  ২২ শে জুলাই রায় প্রদান করতে গিয়ে জানান যে এটা প্রমাণিত যে রাজ‍্যের পাস গ্র‍্যাজুয়েট শিক্ষক গন সর্ব ভারতীয় স্তরের ট্রেন্ড গ্র‍্যাজুয়েট ক‍্যাটেগরী শিক্ষক দের সঙ্গে সাযুজ্য যুক্ত পে স্কেল ও গ্রেড পে দেওয়া হয় নি।
তিনি নির্দেশ দিয়েছেন যে রাজ্যের দ্বায়িত্ব ও কর্তব্য যে সর্বভারতীয় স্তরের সঙ্গে সাযুজ্য রেখেই রাজ‍্যের পাস গ্র্যাজুয়েট ও পোস্ট গ্র্যাজুয়েট শিক্ষক দের মধ্যে যে বেতন বৈষম্য আছে তা দূর করতেই হবে এবং সরকার কি ব্যাবস্থা নিলো তা ১৬ ই আগস্ট এর মধ্যেই জানাতে হবে। এ বিষয়ে রাজ‍্যের আর্থিক পরিস্থিতির কথা সরকার পক্ষের আইনজীবী তুলে ধরার চেষ্টা করলে বিচারপতি তা খারিজ করে বলেন রাজ‍্যের পোস্ট গ্র‍্যাজুয়েট শিক্ষকরা যদি সর্বভারতীয় স্তরের সঙ্গে সাযুজ্য যুক্ত পে স্কেল পান তাহলে পাস গ্র‍্যাজুয়েট ক‍্যাটেগরী শিক্ষকরা কেন পাবেন না ?সুপ্রিম কোর্টে যাওয়ার সম্ভাবনা, ডিএ মামলার রায়ের সার্টিফায়েড কপিই তোলেনি রাজ্য!  বিচারপতি আরও জানিয়েছেন ষষ্ঠ রাজ্য বেতন কমিশন কে এই বৈষম্য দূরীকরণে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। এবিষয়ে ১৬ই অগাস্টের মধ্যে পে কমিশন কে সংগঠনের হিয়ারিং করানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এবিষয়ে রাজ্য বেতন কমিশন কে অর্থ দপ্তর ও শিক্ষা দপ্তরের বা অন‍্যান‍্য দপ্তরের প্রয়োজনীয় সহায়তা নিতে বলা হয়েছিল বিচারপতির তরফে।
অন্যদিকে বিজিটিএ জানিয়েছিল নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সরকার বিষয়টার ওপর আলকপাত করে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা না নিলে আগামী ১৯শে অগাস্ট থেকে তাঁরা আন্দোলনে নামবেন রাজপথে।

আজ বিজিটিএর পক্ষ থেকে এক বার্তায় জানানো হয়েছে,
"মাননীয় শিক্ষক / শিক্ষিকা গন আপনারা সকলেই অবগত আছেন বিগত আড়াই বছর ধরে বিজিটিএ সাংবিধানিক , নিয়মতান্ত্রিক ও গন আন্দোলনের মধ‍্যে দিয়ে দুদশকের বঞ্চনার অবসানে নিরলসভাবে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। বিজিটিএ এক প্রকৃত অরাজনৈতিক সংগঠন। বিজিটিএ যেমন কোনো রাজনৈতিক দলের B Team নয় তেমনি কোনো রাজনৈতিক দলের বিরোধীও নয়।আমাদের আদর্শ হচ্ছে "বিবিধের মাঝে দেখো মিলন মহান"। সদস্য / সদস‍্যা গন নিজের নিজের রাজনৈতিক মতাদর্শ বজায় রেখেই এখানে আমরা একত্রিত হয়েছি।আমাদের লড়াই টা সিস্টেমের বিরুদ্ধে যে সিস্টেম আমাদের দীর্ঘ দুদশক ধরে বঞ্চিত করে রেখেছে। আপনারা যে যে সংগঠন করেন সেই সংগঠনের কাছে দাবি জানান যে তারা যেন এই ব‍্যাপারে সদর্থক পদক্ষেপ নেয়। যে সংগঠন আমাদের দাবি পূরনে প্রকৃত সদর্থক পদক্ষেপ নেবে তাদের আমরা অকুণ্ঠ সমর্থন জানাবো।আমাদের অধিকারের দাবি খুবই পরিষ্কার -
1) 01/01/2006 থেকে আমাদের পে স্কেল কে সংশোধন করে 13(a) পে স্কেল প্রদান করতে হবে যাতে pay in pay band 10260টাকা ও গ্রেড পে 4600টাকা হয়। তবেই গিয়ে PGT ও TGT এর মধ্যে বৈষম্য দূর হবে।
2) মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী বেতন বৈষম্য এমন ভাবেই দূর করতে হবে যাতে রাজ‍্য ষষ্ঠ বেতন কমিশন লাগু হলে PGT ও TGT এর প্রারম্ভিক বেসিক পে এর পার্থক্য 2700টাকার বেশি নাহয়।(সপ্তম কেন্দ্রীয় বেতন কমিশন অনুযায়ী )।
3) Career Advancement Scheme চালু করতে হবে।
আর এই অধিকার অর্জনের জন্য আগামী 19th August সকলকেই কলকাতার মান‍্যতা সমাবেশে যোগদান করতে হবে। মনে রাখবেন একদিনে কোনো অধিকার আদায় হয়না এবং প্রয়োজনে ধর্না , অনশন ,একাধিক বার কলকাতার রাস্তায় নামতে হবে অধিকার আদায়ের জন্য। দলমত নির্বিশেষে এই অধিকার অর্জনের লড়াইয়ে সামিল হোন।"
Loading...

No comments

Theme images by enjoynz. Powered by Blogger.