শিক্ষক দিবসে মুখ্যমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি,শিক্ষকদের প্রাপ্তির ভাঁড়ার শূন্যই!

নজরবন্দি ব্যুরো:বৃহস্পতিবার শিক্ষক দিবসের দিনই রাজ্য জুড়ে শিক্ষক বিক্ষোভ। আর এরই মাঝে নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে দাঁড়িয়ে শিক্ষকদের বিক্ষোভ প্রশমনের জন্য একগুচ্ছ প্রতিশ্রুতির বার্তা দিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।
শিক্ষা দপ্তরের 'শিক্ষারন্ত' সম্মান অনুষ্ঠান মঞ্চে দাঁড়িয়ে ৮০ জন শিক্ষকের হাতে সম্মান তুলে দেওয়ার পর, রাজ্যে শিক্ষক বিক্ষোভ নিয়ে নিজের অস্বস্তি চেপে রাখতে পারলেন না মাননীয়া।
মুখ্যমন্ত্রী শিক্ষকদের সমস্যার কথা স্বীকার করে নিয়ে বলেন,'সমস্যা আছে। সেই সমস্যার মধ্যেও আমরা কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। বিশ্বাস আর ভরসা আমাদের উপরে রাখবেন। যখন যতটুকু পারবো করে দেব। আমার সীমাবদ্ধ তহবিলের মধ্যে যখন যেমন সুবিধা হবে আমি ব্যবস্থা করবো'। এরই সঙ্গে শিক্ষকদের বদলি, প্রমোশন ইত্যাদি  বিষয়গুলোকে মানবিকভাবে দেখার নির্দেশ দিয়েছেন পাশে থাকা শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় ও সংশ্লিষ্ট  শিক্ষা দপ্তরকে।
এর পাশাপাশি মাননীয়া শিক্ষকদের উদ্দেশ্যে বার্তা ছুঁড়ে দিয়ে বলেন, 'শিক্ষকদের চাহিদা নিশ্চয়ই থাকবে। সমস্যাও আছে। তাদেরও আরোও বেশি পাওয়ার আশা থাকবে। উন্নতির আশা থাকবে। যখনই পারবো অবশ্যই তা পূরণ করবো'। এরপরেই মুখ্যমন্ত্রী বিজেপির নাম না করে উপস্থিত  শিক্ষকদের উদ্দেশ্যে বলেন,'ভুল বুঝবেন না। কারও কথা শুনে চট করে ভুল বুঝে কিছু করবেন না। শুধু এইটুকু জেনে রাখবেন আমি নি:স্বার্থভাবে করি। আমার কিছু পাওয়ার নেই। আমি যতদিন থাকবো,মানুষের জন্য কাজ করে যাবো'।
এদিনের শিক্ষক দিবস অনুষ্ঠানে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দেওয়া প্রতিশ্রুতি প্রসঙ্গে শিক্ষক নেতা তন্ময় ঘোষ বলেন,'শিক্ষক দিবসের সরকারি অনুষ্ঠানে বুকভরা আশা নিয়ে উপস্থিত শিক্ষকেরা শূন্য হাতে বাড়ি ফিরছেন! সারা বছর নানা লাঞ্ছনা -বঞ্চনা- কটুবাক্য সহ্য করেও শিক্ষকরা বহু আশা নিয়ে দূরদূরান্ত থেকে ছুটে এসেছিলেন শিক্ষক দিবসের অনুষ্ঠানে, মুখ্যমন্ত্রী যদি কিছু সুরাহা করেন। কিন্তু শিক্ষকদের সমস্যার সুরাহা না করে শুধু আশার বাণী শুনিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী'।  এই প্রসঙ্গে তার বক্তব্য,'শিক্ষকরা আশা করেছিলেন বদলি,পিআরটি,টিজিটি,ডিএ,পে কমিশন,পে ফিক্সেশন নিয়ে পরিষ্কারভাবে ঘোষণা করবেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী আদতে টাকা নেই,কোথায় পাব টাকা,কেন্দ্র টাকা দেয়নি ইত্যাদি পুরনো কথার পুনরাবৃত্তি ঘটালেন। ফলে একথা বলা যায় আজকের শিক্ষক দিবসের অনুষ্ঠান থেকে শিক্ষকদের প্রাপ্তি শূণ্য'।
Loading...

No comments

Theme images by caracterdesign. Powered by Blogger.