কলকাতার দুই প্রধানে স্পনসর নিয়ে বিভ্রান্তি।


নজরবন্দি ব্যুরোঃ কলকাতার দুই প্রধান মোহনবাগান এবং ইস্টবেঙ্গলের স্পনসর নিয়ে বিভ্রান্তি চলছে। মোহনবাগান এটিকের সঙ্গে  স্পনসর নিয়ে কথা বলেছিল। কিন্তু এটিকে এমন কিছু শর্ত চাপিয়েছিল যা বাগানের স্বকীয়তায় আঘাত হানতে পারে। তাই বাগান কর্তারা পিছিয়ে আসেন। এরপরেই সবুজ মেরুন কর্তারা নতুন করে ইনভেস্টর খোঁজার কাজে নেমে পরে। শোনা যাচ্ছে, বাগান কর্তারা ইতিমধ্যেই ইনভেস্টার খুজে পেয়েছি। এই নিয়ে বাগান কর্তারা এফএসডিএলের সঙ্গে মুম্বাইতে গিয়ে কথা বলে এসেছে। তবে বেশ কিছু শর্ত চাপিয়েছে মোহনবাগান। ক্লাবের নাম, জার্সির রঙ, লোগোর বদল হবে না। সঙ্গে দেখা হচ্ছে চুক্তির পরেও ক্লাবের স্বকীয়তা যেন বজায় থাকে। ইনভেস্টরেরা বাগান কর্তাদের দাবি মেনে নিয়েছে। আর তাই চুক্তিপত্র তৈরি করতে সময় লাগছে। সবকিছু ঠিকঠাকভাবে এগোলে পুজোর আগেই সবুজ মেরুন সমর্থকদের কাছে পুজোর উপহার দিতে চলেছে বাগান কর্তারা ইনভেস্টার নিয়ে এসে।
ওদিকেইস্টবেঙ্গলে ইনভেস্টর হিসেবে কোয়েস থাকলেও পরের মরশুমেও কোয়েস থাকবে কিনা তা নিয়ে সংশয় তৈরি হয়েছে। জানা গিয়েছে গত শনিবার এটিকে কর্তাদের ইচ্ছেতে এটিকের অংশীদার উৎসব পারেখ এবং সিইও রঘু আইয়ারের সঙ্গে বৈঠক করেছে ইস্টবেঙ্গলের সভাপতি ডাঃ প্রণব দাশগুপ্ত। এটিকে ইস্টবেঙ্গলের সঙ্গে যুক্ত হতে আগ্রহ দেখিয়েছে। এক্ষেত্রেও লাল হলুদ শিবির কিছু শর্ত চাপিয়েছে এটিকের উপর। সদর্থকভাবে বিষয়টি এগোলে এটিকে কর্ণধার সঞ্জীব গোয়েঙ্কার সঙ্গে বৈঠকে বদতে পারে ইস্টবেঙ্গল্ কর্তারা।  এই বিষয়ে লাল হলুদ কর্তা দেবব্রত সরকার বলেন, 'ক্লাব সভাপতি এটিকের সংগে আলোচনায় বসেছিলেন কিনা, আমার জানা নেই। আর কোয়েস ক্লাবের সঙ্গে জড়িত থাকবে কিনা আমি জানি না। আমি চাই কোয়েস থাকুক। এই প্রসঙ্গে লাল হলুদ কর্তা বলেন, কিংফিশার চলে যাওয়ার পর তিন মাসের মধ্যে কোয়েস চলে এসেছে।যারা আমাদের সঙ্গে আসতে চাইছে, সকলের শর্ত খতিয়ে দেখা হবে'।      
Loading...

No comments

Theme images by caracterdesign. Powered by Blogger.