শুধুমাত্র টিকিট পাওয়ার লোভেই ওমপ্রকাশ মিশ্রর জার্সি বদল!!

নজরবন্দি ব্যুরো: রাজ্য রাজনীতিতে ২০১১ সালে বদলের পর স্রোতে গা ভাসিয়ে দেওয়ার প্রবণতা দেখা গিয়েছে। সিপিএম সহ বাম শরিক দল থেকে সাংসদ,বিধায়ক থেকে শুরু করে পার্টি সদস্য, সমর্থকেরাও ঘাসফুল  শিবিরে নাম লিখিয়ে ফেলেছে। প্রদেশ কংগ্রেস শিবিরও এই স্রোতে গা ভাসানো থেকে নিজেদের বিরত রাখতে পারেনি। কিন্তু স্রোতের অনুকূলে না সাঁতরে অনেকেই আবার স্রোতের প্রতিকূলেও গা ভাসিয়ে ছিলেন। হয়ে উঠেছিলেন বিরোধী মুখের ছবি। কিন্তু হায়! স্রোতের প্রতিকূলে সাঁতরাতে সাঁতরাতে কখন যে স্রোতের অনুকূলে সাঁতরাতে শুরু করে দিলেন তা সত্যিই বড়ই আশ্চর্যের। তিনি আর কেউই নন, সদ্য প্রদেশ কংগ্রেস থেকে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দেওয়া অধ্যাপক ওমপ্রকাশ মিশ্র।
পালাবদলের পর থেকে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সমালোচনায় সরব হতে দেখা গিয়েছিল একদা বাম কংগ্রেস জোটের সবথেকে বড় প্রচারক ওমপ্রকাশ মিশ্রকে। বাগ্মীতা,সুচিন্তিত বক্তব্য,রাষ্ট্রবিঞ্জানের জগৎ এ অপরিসীম বিস্তৃতি বিশেষত আন্তজার্তিক সম্পর্ক বিশ্লেষণে জুড়িমেলা ভার, নাম তার ওমপ্রকাশ মিশ।
কিন্তু শুধুমাত্র নিজের রাজনৈতিক লক্ষ্যকে (স্বপ্ন) পূর্ণ করার জন্য দলবদল করে ফেললেন। যদিও এই দলবদলের রাস্তা মোটেও মসৃণ ছিল না। বরং তা ছিল ভঙ্গুর, পিচ্ছিল। পিছলে গিয়েছিলেন ওমপ্রকাশ মিশ্র। কিন্তু নিজেকে আবার সামলেও নিয়েছেন। ২০১৯ এর লোকসভা ভোটের ফলপ্রকাশের পর রাম সংসারে পা রাখতে গিয়ে হোঁচট খেতে হয়েছিল। কিন্তু দমে যাননি। রামের সংসারের দরজা জানালা বন্ধ হতেই সোজা পাড়ি দিলেন অনুকূল স্রোতে গা ভাসিয়ে দিতে। আর তাতেই কেল্লা ফতেহ!
আপাতত মুখ্যমন্ত্রীর মন গলিয়ে ক্ষমা চেয়ে  রাজ্যের শাসক শিবিরের শিক্ষা সেলের সভাপতি। তবে এখনও অভিষ্ট লক্ষ্য(স্বপ্ন) পূর্ণ হয়ে ওঠেনি। ২০২১ এর বিধানসভা ভোটে তৃণমূল প্রার্থী পদ পেয়ে জিতে  রাজ্য বিধানসভায় পা রাখাই আপাতত পাখির চোখ। অতপর ফের একবার স্বপ্ন পূরণের হাতছানি!
Loading...

No comments

Theme images by caracterdesign. Powered by Blogger.