বৃষ্টি উপেক্ষা করে কালো মাথার ভিড়; সিঙ্গুরে শিল্প চাই! পদযাত্রা বাম ছাত্র যুবদের।

নজরবন্দি ব্যুরো: সিঙ্গুর আন্দোলন ৩৪ বছরের বাম জমানার ভিত নাড়িয়ে দিয়েছিল। টাটাদের ন্যানো গাড়ির কারখানা গড়ে তোলার জন্য সিঙ্গুরে জমি দিয়েছিল তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য। কিন্তু টাটাদের জমি দেওয়া অনিচ্ছুক চাষিদের সংগঠিত করে আন্দোলনে রাস্তায় নেমে পড়েন তখনকার বিরোধী নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। জাতীয় সড়কে মঞ্চ টাঙিয়ে অবস্থানে বসেছিল মমতা। জঙ্গি আন্দোলনের জেরে ন্যানো পাততাড়ি গুটিয়ে গুজরাতের সানন্দে চলে যায়। এরপর ২০১১ সালে রাজ্য বিধানসভা ভোটে পালাবদল ঘটে যায়। ক্ষমতায় এসে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সিঙ্গুরে অনিচ্ছুক চাষীদের হাতে জমি ফিরিয়ে দেয়।
কিন্তু রাজ্যে আর টাটা গোষ্ঠী ফিরে আসেনি শিল্প করতে। এরপর গঙ্গা নদী দিয়ে অনেক জল গড়িয়ে গেছে। রাজ্যে বদলের পর বামের রক্তক্ষরণ অব্যাহত। এরই মধ্যে ২০১৯ এর লোকসভা ভোটে রাজ্যে বিজেপি ২ থেকে ১৮ আসন পেয়ে নিজেদের শক্তবৃদ্ধি করে বসে। এত রাজনৈতিক সমীকরণ পাল্টে গেলেও বাম ছাত্র যুব সংগঠন' সিঙ্গুর ক্ষত' এখন ভুলে উঠতে পারেনি। আর তাই বৃহস্পতিবার সেই সিঙ্গুর থেকেই নবান্ন অভিযানের ডাক দিয়েছে। বাম ছাত্র যুবদের পদযাত্রা ঘিরে তাই সাজো সাজো রব নবান্ন জুড়ে।
এদিকে বামেরা রাজ্যে নিজেদের হারানো রাজনৈতিক জমি ফিরে পেতে ময়দানে নেমে পড়েছে।  শিল্পায়নের দাবিকে সামনে রেখে পদযাত্রার ডাক দিয়েছে। সিঙ্গুর থেকে এই পদযাত্রায় সামিল হয়েছে বাম ছাত্র যুবরা। নবান্ন অভিযানের এই পদযাত্রায় প্রথম ধাপ হিসেবে সিংগুর থেকে ডানকুনি যাওয়া হবে। এরপর রাত্রিযাপন। পরের দিন শুক্রবার ডানকুনি থেকে হাওড়া স্টেশন হয়ে নবান্নে যাওয়া হবে। গোটা অভিযানে ২০ থেকে ২৫ হাজার জন অভিযানে সামিল হতে চলেছে এমনই জানিয়েছে বাম ছাত্র যুব সংগঠনের নেতারা।
প্রসঙ্গত, সিঙ্গুরে রাজ্য সরকার টাটাদের জমি দিয়েছিল ন্যানো প্রকল্পের জন্য (ছোট গাড়ি উৎপাদন), তার ৮০ শতাংশ  কাজ করে ফেলেছিল টাটা মোটরর্স। কিন্তু তার পরেই বেগ পেতে হয়। মুখ ফিরিয়ে নেয় টাটারা। ২০১১ সালের বিধানসভা ভোটে অষ্টম বাম সরকার গঠনের জন্য বামেদের তরফ থেকে ডাক দেওয়া হয়েছিল 'কৃষি আমাদের ভিত্তি, শিল্প আমাদের ভবিষ্যৎ'। কিন্তু সিপিএম সহ বামফ্রন্ট মুখ থুবড়ে পড়ে। বিপুল ম্যান্ডেট নিয়ে বাংলার মসনদে চলে আসেন কালীঘাটের এক চিলতে টালির ঘরের বাসিন্দা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সুপ্রীম কোর্টের নির্দেশে অনিচ্ছুক কৃষকেরা অধিগৃহীত ন্যানো কারখানার জমি থেকে জমি ফিরে পেয়ে যান। কিন্তু ব্যস ওই পর্যন্তই। ঝমি হাতে পেয়েছে অনিচ্ছুক চাষীরা। শিল্প হয়নি।
তাই এবার শিল্পায়নের দাবিকে সামনে রেখে রাস্তায় নেমে পড়েছে বাম ছাত্র যুবরা।       

Loading...

No comments

Theme images by caracterdesign. Powered by Blogger.