‘জুটিতে লুটি’, বৈশাখীর অপমান হলে বিজেপিতেও থাকবেন না শোভন।

নজরবন্দি ব্যুরোঃ আট মাস তৃণমূলে একঘরে থাকার পর দিল্লীতে গিয়ে বিজেপিতে যোগ দিয়ে বলেছিলেন মুক্তির সাধ পেলেন। কিন্তু তার ২ সপ্তাহ যেতে না যেতেই সেই মুক্তি শৃঙ্খল হয়ে দেখা দিয়েছে শোভন এর কাছে। হাঁ এটাই সত্যি। বন্ধু বৈশাখীর কথাই শোভনদা এখন বিজেপি থেকে নিষ্কৃতি পেতে চাইছেন। অনেক চেষ্টা করেও তৃণমূল তার অভিমান ভাঙতে পারেনি। মমতার কানন তৃণমূলকে টাটা করে যোগ দিয়েছিলেন বিজেপিতে। কিন্তু এখন তিনি বুঝতে পারছেন বিজেপি অত সহজ দল নয়। আর তাই তাঁরা যে এভাবে বিজেপিতে থাকতে চান না,তা কৈলাশ বিজয়বর্গীয়র বাড়িতে গিয়ে সাফ জানিয়ে এসেছেন দুজনে। আর বিজেপি নেতৃত্ব বুঝতে পেড়েছেন শোভনকে বিজেপিতে রাখতে গেলে বৈশাখীকে বাগে আনতে হবে।
 কিন্তু বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর থেকেই বৈশাখীর সঙ্গে ঝামেলার শুরু রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের। তা দাল-ভাত বিতর্ক হোক কিংবা কার্ডে নাম ছাপানো নিয়ে হোক। তাই শোভন কে দলে রাখতে গেলে বৈশাখীকে রাখতে হবে কারণ দিদির কানন মমতা রুপী মা কে ছেড়ে এসেছেন বন্ধু বৈশাখীর জন্য। তাই বৈশাখীর অপমান মেনে নেওয়ার পাত্র নন শোভন সেটা সহজেই বোঝা যায়। তাই অরবিন্দ মেনন থেকে শুরু করে কৈলাশ বিজয়বর্গীয় দফায় দফায় শোভনের সঙ্গে বৈঠক করছেন কিন্তু শোভন তাদের বলেছেন অসম্মানিত হয়ে তিনি কোনওভাবেই বিজেপিতে থাকতে চান না। প্রয়োজনে তিনি রাজনীতি ছেড়ে দেবেন কিন্তু অসম্মানিত হয়ে থাকবেন না। যে কারণে তিনি তৃণমূল ছেড়েছেন বিজেপিতে আসার পর থেকে সেই একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটে চলেছে। তাই হয়তো যে কোন সময় বিজেপি থেকে বেরিয়ে যেতে পারেন শোভন-বৈশাখী।
Loading...

No comments

Theme images by caracterdesign. Powered by Blogger.