Header Ads

মিলবে টিজিটি স্কেল, যোগ্য সম্মান? বিজিটির মামলায় কড়া নির্দেশ হাইকোর্টের!

নজরবন্দি ব্যুরোঃ আজ বিজিটিএ'র করা টিজিটি সংক্রান্ত  আদালত অবমাননা মামলায় সরকার কে আগের রায় কে মান্যতা দিয়ে  হলফনামা দিতেই হবে বলে পরিষ্কার জানিয়ে দিল মহামান্য হাইকোর্ট। প্রসঙ্গত বৃহত্তর গ্র‍্যাজুয়েট টিচারস এসোসিয়েশান গ্র‍্যাজুয়েট টিচারদের টিজিটি স্কেল প্রদান ও "পাশ" তকমার অবসান কল্পে রাস্তায় নেমে আন্দোলনের পাশাপাশি হাইকোর্টে ও একাধিক মামলা করে। গত ২২ শে জুলাই এমন ই একটি মামলায় মহামান্য হাইকোর্ট ম্যান্ডামাস জারী করে গ্র‍্যাজুয়েট টিচারদের বঞ্চনা দূরীকরণের আদেশ দেন। অর্থনৈতিক কোন অজুহাত সরকার দেখাতে পারবেন না বলে ও রায়ে উল্লেখ করা হয়। কিন্তু সরকার এই রায় কে উপেক্ষা করে গত ২৫ সেপ্টেম্বর পে কমিশন ঘোষণা করে। তখন বিজিটিএ'র তরফে আদালত অবমাননা মামলা করা হয়। ঐ মামলার দু- দুটো শুনানিতে সরকার পক্ষ অনুপস্থিত থাকে। এবং ঐ সময়ে ই গত ১৬ ই ডিসেম্বর শিক্ষা দপ্তরের রোপা ও প্রকাশ করে। যথারীতি সেই রোপাতে ও কোর্টের রায়ের কোন প্রভাব লক্ষ্য করা যায় নি। পরে ২৪ শে ডিসেম্বরের শুনানি তে কোর্টের রায় মেনে সরকারকে ৪ঠা জানুয়ারীর মধ্যে এভিডেভিড জমা দিতে বলে হাই কোর্ট, কিন্তু সরকার সেই নির্দেশ ও মানেন নি।
আজ বিকেল তিনটেয় ৩৯ নং কোর্টে জাস্টিস মৌসুমী ভট্টাচার্যের এজলাসে মামলাটি পুনরায় শুনানির জন্য উঠলে সরকারী পক্ষের আইনজীবী এভিডেভিডের ব্যপারটি লঘু করে দেখাতে চাইলে বিচারপতি যারপরনাই ক্ষুন্ন হন। বিজিটিএ অ্যাডভোকেট প্যানেল ও সওয়াল জবাবে বলেন যে সকার যদি ম্যান্ডামাসের মত রায় কে না মেনে অবমাননা মামলার নির্দেশ কে ও উপেক্ষা করেন তাহলে আইন ও বিচার ব্যবস্থার উপর থেকে সাধারণ মানুষের আস্থাটাই উঠে যাবে। তারা আরো বলেন যে সরকার  বার বার হাই কোর্টের রায় কে উপেক্ষা করছেন, এদিকে পে কমিশনের অপশন দেওয়ার কাজ ও শেষের দিকে তাহলে আখেরে কি সরকার হাই কোর্ট কে মান্যতা দেন না! জবাবে বিচারপতি বলেন যে তিনি একবার যখন অর্ডার কমপ্লাই করে হলফনামা দিতে বলেছেন তখন সরকার কে তা দিতে ই হবে। সরকার কেন তা গত ৪ঠা জানুয়ারীর  মধ্যে দেন নি তিনি তা জানতে চাইলে সরকারী তরফে ক্ষমা চেয়ে এক সপ্তাহ সময় চাওয়া হয়,কিন্তু মাননীয়া বিচারপতি কঠোর মনোভাব দেখিয়ে দু দিন সময় দিতে চান। পরে সরকারী আইনজীবী নিজের মেডিকেল এপয়েন্টমেন্টের কথা উল্লেখ করে অন্তত তিন দিন সময় চেয়ে বারংবার কাকুতি মিনতি করলে বিচারপতি তা মঞ্জুর করেন। ফলে আগামী বৃহস্পতিবারের মধ্যে  রায় কে সম্মতি জানিয়ে এভিডেভিড দিতেই হবে সরকারকে। তার আগে তা পিটিশনারদের কে জানাতে হবে। সবদিক বিবেচনা করে এই মামলার ফাইনাল জাজমেন্ট শোনাবেন বলে বিচারপতি মন্তব্য করেছেন।
হাইকোর্টে উপস্থিত বিজিটিএ সাধারণ সম্পাদক শ্রী সৌরেন ভট্টাচার্য এক প্রশ্নের উত্তরে জানান, "  বিচার ব্যবস্থার উপর বিজিটিএ'র আস্থা ছিল, আছে, থাকবে। গনতান্ত্রিক রাস্ট্রে কোন সরকার ই আইনের উর্ধ্বে নন। কিন্তু পশ্চিম বঙ্গ সরকার বিজিটিএ  মামলার রায় কে যে ভাবে উপেক্ষা করেছে, তা গনতন্ত্র তথা সংবিধানের পরিপন্থী। আমাদের বিশ্বাস হাইকোর্ট সরকারে এই চরম ঔদ্ধত্যের সঠিক বিচার করবেন ও সরকার ও কোর্টের রায় মেনে আমাদের বঞ্চনা দূর করবেন।"
তিনি আরো বলেন," বিজিটিএ পশ্চিম বঙ্গের গ্র‍্যাজুয়েট টিচারদের বঞ্চনা দূরীকরণে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ, তাই আইনী প্রক্রিয়ার পাশাপাশি আমাদের ১৬ ই জানুয়ারীর বিক্ষোভ মিছিল ও সভা ও চলবে।" বিজিটিএ অন্যতম রাজ্য নেতৃত্ব তথা যুগ্ম কোষাধ্যক্ষ শিক্ষক শ্রী স্বপন কুমার মন্ডল বলেন, "সরকার গনতন্ত্রের প্রধান স্তম্ভকে না মানলে তা হবে সমগ্র দেশের লজ্জা। তবে বিজিটিএ ও দেখতে চায় কতদিন এই সরকার হাই কোর্ট কে তুচ্ছতাচ্ছিল্য করতে পারে। বিজিটিএ এর শেষ দেখেই ছাড়বে। পশ্চিম বঙ্গে শিক্ষক আন্দোলনের নতুন ইতিহাস গড়বে বিজিটিএ যদি সরকার এইভাবে মহামান্য হাইকোর্ট কে হাস্যকর করে তোলে"

No comments

Theme images by lishenjun. Powered by Blogger.