Header Ads

বিড়াল থেকে খুব দ্রুত করোনা ভাইরাস ছড়াতে পারে; এমনই চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে এল গবেষকদের হাতে।

নজরবন্দি ব্যুরো: এবার গবেষণায় উঠে এল আরও এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। জানা যাচ্ছে বিড়াল নাকি খুব দ্রুত এই ভাইরাস ছড়াতে পারে। আগেও বিড়ালের শরীরে ধরা পড়েছে করোনাভাইরাস। এমনকি বাঘও আক্রান্ত হয়েছে এই মারন ভাইরাসে। গবেষকরা দেখেছেন বিড়াল থেকে বিড়ালে দ্রুত এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে পারে। যদিও এখনো পর্যন্ত বিড়াল থেকে মানুষের শরীরে সংক্রমণের কোন ঘটনা সামনে আসে নি। তবে গবেষকরা বলছেন ইন্টারমিডিয়েট হিসেবে বিড়ালের ভূমিকা থাকা অস্বাভাবিক কিছু নয়। বিড়াল এই ভাইরাসের নিঃশব্দ বাহক হতেই পারে। তবে এই বিষয়ে আরও বেশি গবেষণার প্রয়োজন আছে।
নিউ ইংল্যান্ড জার্নাল ও মেডিসিনে ওই গবেষকদের একটি লেখা প্রকাশিত হয়েছে, সেখানে বলা হয়েছে যেসব পরিবারে বিড়াল পোষ্য হিসেবে রয়েছে তাদের সাবধানে থাকতে হবে। ইউনিভার্সিটি অফ ইউসকনসিন স্কুল অফ ভেটারনিটি মেডিসিনের অধ্যাপক ইশোশিহিরো কাওয়াওকারের নেতৃত্বে এই গবেষণার সূত্রপাত। ভাইরাস আক্রান্ত তিন বিড়ালকে এক জায়গায় রাখা হয়, তারপর দেখা যায় গবেষকরা সংক্রমিত হয়নি কিন্তু পাঁচ দিনের মধ্যেই বাকি তিন বিড়াল সংক্রমিত হয়ে পড়েছে। এদের মধ্যে কোনো লক্ষণ দেখা যায়নি। যেখানে নিউইয়র্ক এর চিড়িয়াখানায় মানুষের থেকে বাঘ সংক্রমিত হয়েছে।
 তাতেই এই বিষয়ে চিন্তা-ভাবনার দরকার আছে বলে জানিয়েছেন গবেষকরা। কেউ করোনা সংক্রমিত হলে তাকে বিড়ালের থেকে দূরে থাকতে বলা হয়েছে। ২০১৬ তে H7N2 ইনফ্লুয়েঞ্জা মহামারী আকার ধারণ করেছিল তখন নিউইয়র্ক-এর অ্যানিম্যাল শেল্টারে অন্যান্য প্রাণীদের থেকেই আক্রান্ত হয়েছিল পশু চিকিৎসকেরা। সংক্রমণে বিড়ালের ভূমিকা উড়িয়ে দিতে পারছেন না গবেষকরা। তারা আরও জানিয়েছেন বিড়ালের শরীরে খুব কম পরিমাণ ভাইরাস লেভেল থাকে, তাই বিড়ালের নাক বা মুখ দিয়ে এই ভাইরাস বেরোনোর আশঙ্কা থাকে না যাতে মানুষ আক্রান্ত হতে পারে। তাই গবেষকরা জানিয়েছেন কেউ আক্রান্ত হলে বিড়াল অথবা অন্যান্য পোষ্যদের থেকে দূরত্ব বজায় রাখুন।
Loading...

কোন মন্তব্য নেই

lishenjun থেকে নেওয়া থিমের ছবিগুলি. Blogger দ্বারা পরিচালিত.