প্রশ্নের মুখে প্রশিক্ষণ-হীন শিক্ষকদের ভবিষ্যৎ! দায় কার?




নজরবন্দি ব্যুরো: অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত কর্মরত শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ নেওয়ার শেষ সুযোগ দিয়েছিলেন কেন্দ্রীয় সরকার। বাস্তবে পর্যাপ্ত স্টাডি সেন্টারের অভাবে এই প্রশিক্ষণ-হীন শিক্ষকদের ভবিষ্যৎ এখন প্রশ্নের মুখে। যেখানে প্রায় ১৮০০ ট্রেনিং সেন্টারের প্রয়োজন, সেখানে রাজ্যের তরফে বরাদ্দ করা হয়েছে মাত্র ১৬৮ টি। এই ট্রেনিং-এর দায়িত্বে রয়েছে এনআইওএস। পরিস্থিতি এখন যে জায়গায়, রাজ্যকে চিঠি দিয়ে অবিলম্বে আরও স্টাডি সেন্টারের ব্যবস্থা করতে বলেছেন কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রক। কেন্দ্রের স্কুল শিক্ষা দপ্তর ইঙ্গিত দিয়েছে, প্রয়োজনীয় স্টাডি সেন্টারের ব্যবস্থা না করতে পারলে শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ-প্রার্থীর পদও বাতিল হবার সম্ভাবনা আছে।


আর শেষ পর্যন্ত মূলত এই প্রশিক্ষণ পাচ্ছেন এসএসকে ও এমএসকে শিক্ষকরা। এর পাশাপাশি আছে বেসরকারি স্কুলের শিক্ষক। যারা অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত ক্লাস নেন। এছাড়া সরকারি সাহায্যপ্রাপ্ত স্কুলের বেশ কিছু স্থায়ী ও পার্শ্বশিক্ষকরাও রয়েছেন। নিয়ম অনুসারে ১০০ জন পিছু একটি করে স্টাডি সেন্টার করতে হবে। সেই অনুসারে, মোট স্টাডি সেন্টার হবার কথা ১৭৩৪। কিন্তু রাজ্য সরকার এখনও পর্যন্ত ১৬৮ টি স্টাডি সেন্টারের তালিকা পাঠাতে পেরেছে। এর ফলে প্রশিক্ষণ পুরো-দমে শুরু করা যাচ্ছেনা। জানা গিয়েছে, স্টাডি সেন্টারের তালিকা প্রতিটি জেলা থেকে পাঠানোর দায়িত্বে রয়েছে প্রাথমিক বিদ্যালয় সংসদগুলির। সেই তালিকা শিক্ষা-দপ্তরের মাধ্যমে কেন্দ্রের কাছে পাঠানোর কথা। বিশেষ সূত্রের খবর, পুরুলিয়া, নদীয়া বাঁকুড়ার মতন কয়েকটি জেলা থেকে সেই তালিকা এসেছে। আর বেশিরভাগ জেলা থেকে এই তালিকা না আসাতেই এই সমস্যা।

অপরদিকে ২০১৯ সালের ৩১ মার্চ পর্যন্ত প্রশিক্ষণের এই ছাড় দিয়েছে আদালত। তার মধ্যেই যা করার করতে হবে। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে প্রশিক্ষণ শেষ না করতে পারলে চাকরি চলে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে এই রাজ্যের বহু শিক্ষকদের।


Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*