Header Ads

DESCRIPTION OF IMAGE

শিক্ষক বিদ্রোহে বেসামাল প্রশাসন। কেন্দ্রীয় বাহিনী না এলে ভোট গননায় অংশগ্রহন নয়। #Exclusive

নিজস্ব প্রতিনিধি, রায়গঞ্জ ইটাহারে ভোট নিতে যাওয়া করনদিঘি হাই মাদ্রাসা স্কুলের শিক্ষক রাজকুমার রায় নিখোঁজের পর রায়গঞ্জের রেললাইনের ধার থেকে ক্ষতবিক্ষত মৃতদেহ উদ্ধারে দোষীদের গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে গণনা প্রশিক্ষণ নিতে আসা ভোটকর্মীরা বিক্ষোভে ফেটে পড়ে ৩১ নম্বর জাতীয় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখতে থাকে। ভোট কর্মিরা ঘড়ি মোড়ে দীর্ঘক্ষন অবরোধের পরেও আন্দোলনকারীদের দাবি মতো উপযুক্ত আশ্বাস দিতে ঘটনাস্থলে জেলাশাসক ও পুলিশ সুপার না আসায় আরও তীব্রতর হচ্ছে শিক্ষক ও ভোটকর্মীদের আন্দোলন। প্রশাসনের উপর চাপ সৃষ্টি করতে তাঁরা শিলিগুড়ি মোড়ে ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়ক অবরোধের সিদ্ধান্ত নেন

ভোটকর্মীরা নিহত প্রিসাইডিং অফিসার রাজকুমার রায়ের ছবি নিয়ে বিক্ষোভ মিছিল করে শিলিগুড়ি মোড়ে ৩৪ নাম্বার জাতীয় ও রায়গঞ্জ - বালুঘাট রাজ্য সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ শুরু করেছে। চলছে জাতীয় সড়ক অবরোধ। কোনও হেলদোল নেই প্রশাসনের।

বুধবার সকাল থেকে রায়গঞ্জ শহরের ঘড়ি মোড় এলাকায় সহকর্মী প্রিসাইডিং অফিসার রাজকুমার রায়ের মৃত্যুর প্রতিবাদে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন ভোটকর্মীরা। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, অতিরিক্ত জেলা শাসক, মহকুমা শাসক প্রশাসনিক আধিকারিকরা বারবার বুঝিয়ে অবরোধ তোলার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন। উলটে অবরোধকারীদের বোঝাতে গিয়ে চূড়ান্ত হেনস্থার শিকার হন মহকুমা শাসক টি এন শেরপা। ধাক্কাধাক্কি, কিল,ঘুষি সহ এসডিওকে লক্ষ্য করে জুতোও ছোড়েন বিক্ষোভকারীরা। এখানেই ক্ষান্ত না হয়ে এসডিওর গায়ে ও মাথায় জল ঢেলে দেন ক্ষুব্ধ ভোটকর্মীরা।

যতক্ষন না জেলা শাসক ও পুলিশ সুপার তাঁদের আশ্বস্ত করবেন ততক্ষন তাদের আন্দোলন চলবে। তাঁদের আরো অভিযোগ পুলিশের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন রাজকুমার বাবুর স্ত্রী,কিন্তু তাদের কিন্তু তাদের অভিযোগের রিসিভ কপি দিলেও তাদের কেশ নাম্বার দেয়নি।পুলিশ জানান তাদের ঘটনার সুত্র ইটাহার ও শেষ রায়গঞ্জের জিআরপি পুলিশ। তাই তাদের কেশ নাম্বার দিতে রাত হবে। তার সাথে আগামীকাল ভোট গননায় তারা নিরাপত্তা হীন মনে করছেন নিজেদের। ভোট গননা করতে হলে কেন্দ্রীয় বাহিনী মতায়ান করতে হবে। তা না হলে গননায় অংশ গ্রহণ করবেন না। এই অবরোধের জেরে বহু দূর পাল্লার গাড়ি আটকে পড়েছে। ঘটনা স্থলে বিশাল পুলিশ বাহিনী।

No comments

Theme images by sndr. Powered by Blogger.