Header Ads

রুদ্ধশ্বাস ম‍্যাচে পেনাল্টিতে স্পেনকে হারিয়ে কোয়ার্টারে আয়োজক রাশিয়া।

শুভব্রত মুখার্জিঃ রাশিয়া বনাম স্পেন প্রি কোয়ার্টারে মস্কোতে উৎসবমুখর পরিবেশের মধ্যে দিয়ে শুরু হয়েছিল এক জমজমাট ম‍্যাচের। তবে ম্যাচের শুরুতেই আত্মঘাতী গোলে পিছিয়ে পড়ার ফলে কিছুটা ছন্দপতন ঘটেছিল রাশিয়ান সমর্থকদের উৎসাহে। এরপর পেনাল্টি থেকে গোল করে ম্যাচে সমতায় ফেরে রাশিয়া।
বক্সের ভেতর হেড করতে ওঠা  পিকের হাতে পেছন বল লাগলে পেনাল্টির নির্দেশ দিয়েছিলেন রেফারি। রেফারির সঙ্গে বিতণ্ডায় কার্ডও দেখেন তিনি। ৪১তম মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোল করে সমতা ফেরান ডাইজুবা।
ম্যাচের ১১ মিনিটেই আত্মঘাতী গোলে স্পেনকে এগিয়ে দিয়েছিলেন ইগনাশেভিচ। মার্কো আসেননিওর ফ্রি কিকের পর রামোসকে ট্যাকেল করা চেষ্টা করেছিলেন ইগনাশেভিচ। হুড়োহুড়িতে  মাটিতে পড়ার সময় ডিফেন্ডারের পায়ে লেগে বল নিজেদের জালে জড়িয়ে যায় । রাশিয়া বিশ্বকাপে এটি ১০ম আত্মঘাতী গোল।
দ্বিতীয়ার্ধে দুদলই খুব রক্ষনাত্মক, কাউন্টার অ‍্যাটাক নির্ভর খেলা শুরু করে। দ্বিতীয়ার্ধে ৯০+৪’ পর্যন্ত বিপক্ষ স্পেনের গোলে একটিও শট নিতে ব‍্যর্থ হন রাশিয়ানরা। ইউরো হোক কিংবা বিশ্বকাপের নক আউটে স্পেন কখনই আয়োজক দেশকে হারাতে পারেনি। তাই আয়োজক রাশিয়ার বিপক্ষে ম‍্যাচ যত গড়িয়েছে স্পেন সমর্থকদের টেনশান ততই বেড়েছে। নির্ধারিত সময়ে খেলা ১-১ এ অমীমাংসিত থাকলে অতিরিক্ত সময়ে খেলা গড়ায়।
অতিরিক্ত সময়য়ে কুজিয়েভের বদলে ৯৭’ এরোখিনকে বদলি হিসেবে রাশিয়ানরা মাঠে নামালে বিশ্ব ফুটবলের ইতিহাসে প্রথম ৪র্থ বদলি খেলোয়াড় হিসেবে নেমে নজির গড়েন তিনি। অতিরিক্ত সময়ে ও খেলা ১-১ থাকলে ম‍্যাচ গড়ায় পেনাল্টিতে।
দুদলের গোলরক্ষক আকিনফায়েভ এবং ডে জিয়ার উপর বাড়তে থাকে প্রত‍্যাশার চাপ। প্রথম দুটি শটে দুদলই গোল করার পর স্পেনের কোকের শট ডানদিকে ঝাঁপিয়ে পড়ে দুরন্ত ভাবে সেভ করেন রাশিয়ান গোলরক্ষক আকিনফায়েভ। ৩-৪ থাকা অবস্থায় স্পেনের আসপাসের শটে পাওয়া ঠেকিয়ে বাইরে বের করে দিয়ে কোয়ার্টারে উঠে যায় রাশিয়ানরা।
রাশিয়া : – ১ (৪)
(চেরিশেভ,গোলোভিন,ইগনাসেভিচ,স্মলভ)
( ডাইযুবা ৪১’ (পেনাল্টি))
স্পেন :- ১ (৩ পেনাল্টি)
(ইগনাসেভিচ আত্মঘাতী ১২’)
( পেনাল্টি ইনিয়েস্তা,র‍্যামোস,পিকে)
DESCRIPTION OF IMAGE
Theme images by caracterdesign. Powered by Blogger.