Header Ads

একাদশ-দ্বাদশের কাউন্সিলিং পিছিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা প্রবল।

নজরবন্দি ব্যুরোঃ রাজ্যে শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে বিতর্ক অনেক দিনের। এবার আবার নিয়োগ নিয়ে তৈরি হয়েছে নতুন বিতর্ক। স্কুল সার্ভিস কমিশন আইনের ১২ নং ধারা অমান্য করেই এসএসসি একাদশ-দ্বাদশের শিক্ষক নিয়োগের কাউন্সিলিং শুরু করতে চলেছে।

আর এই অভিযোগে তুলে চাকরি প্রার্থীদের একাংশ মহামান্য হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছে। তাদের স্পষ্ট  দাবি স্কুল সার্ভিস কমিশনের আইনের ১২ নং ধারায় বলা হয়েছে, চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করার পরেই তবে নিয়োগ করা যাবে। এবার সেই তালিকা পিডিএফ ফরম্যাটে প্রকাশ করার দাবি জানিয়ে মুনসী ওয়ারিস আসগর,তনুশ্রী দাস, বিশ্বজিৎ পাল সহ কুড়িজন হাইকোর্টে মামলা দায়ের করেন।

 মামলাকারীদের আইনজীবী আদালতে বলেন, নিয়মকানুনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে কাউন্সিলিং করতে চলেছে এসএসসি কর্তৃপক্ষ। এর ফলে দূর্নীতি হওয়ার সম্ভাবনা থেকে যাচ্ছে। তাছাড়া চূড়ান্ত প্যানেল না থাকলে কারা কারা চাকরি পেলেন এবং চাকরি প্রার্থীরাও তাদের সঠিক অবস্থান জানতে পারবে না। সুতরাং চলতি মাসের ৬ তারিক স্কুল সার্ভিস কমিশন যে বিঞ্জপ্তি জারি করেছে তাকে বাতিল করার জন্য  মহামান্য হাইকোর্টে আবেদন করেছেন উপরোক্ত চাকরি প্রার্থীরা।

উল্লেখ্য,  বিচারপতি শেখর ববি শরাফের এজলাসে আজ এই মামলার শুনানী হতে চলেছে আর কিছুক্ষণের মধ্যেই।
রাজ্যের আইনজীবীদের মতে, মামলার শুনানী শুরু হলে তার নিস্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত এসএসসির একাদশ-দ্বাদশের কাউন্সিলিং পিছিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা প্রবল।

No comments

Theme images by caracterdesign. Powered by Blogger.