Breaking News

শিক্ষক নিয়োগ কি এই রাজ্যে আদৌ সম্ভব? চরম অনিশ্চিত হবু শিক্ষকদের ভবিষ্যৎ।

নজরবন্দি ব্যুরোঃ শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে বিতর্ক এই রাজ্যে নতুন কিছু নয়। চাকরি প্রার্থীদের ভবিষ্যৎ যে অন্ধকারে আচ্ছন্ন সেটা বুঝ গিয়েছেন তারাও। এবার আবারও বড় ধাক্কা খেলো কমিশন।
SSC-র নিয়োগে আবার বড়সড় ধাক্কা। SSC-র প্রক্রিয়া নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই প্রায় অভিযোগ উঠছে। গত SSC অর্থাৎ 12th RLST  নিয়োগ সংক্রান্ত কিছু মামলার নিয়ে আজ শুক্রবার আবার মাননীয় বিচারপতি I. P মুখার্জির বেঞ্চ SSC কমিশনকে তীব্র ভৎসনা করলেন।

জানা গিয়েছে, মূলত শিক্ষক ছাত্র ঐক্য সংগ্রাম মঞ্চ এই সংগঠনের করা মামলায় SSC কমিশন আরও একটি বড় সমস্যায় জড়ালো। গত ১১ই সেপ্টেম্বর ২০১৭ সালের writ পিটিশন 5385 নং মামলায় সুপ্রিম কোর্টের দুটি অর্ডার কলকাতা হাই কোর্ট বহাল রাখেন । ওই দুটি অর্ডারে একটি অর্ডারে বলা হয়েছে এনসিটি নির্দেশিকা অনুযায়ী সর্ব নিন্ম যোগ্যতা সম্পূর্ণ প্যানেল ভুক্ত চাকরি প্রার্থীদের চাকরি দিতে হবে। যদি শূন্যপদ বেঁচে থাকে তাহলে এনসিটির নিয়ম অনুযায়ী বাকি যারা ছাড়ের আওতায় তারপর তাদের নিয়োগ করতে হবে। এমনটাই নির্দেশ দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্ট।

অন্য আরেকটি সুপ্রিম কোর্টের অর্ডারে বলা হয়েছে যে SSC পরীক্ষা নিতে পারবেন, তবে ফল প্রকাশ করার সময় কোর্টের কাছে মুখবন্ধ খামে সমস্ত তথ্য জমা করতে হবে।

কিন্তু শিক্ষক নিয়োগের এসএসসি কমিশন উক্ত দুটি অর্ডার চরম ভাবে অবমাননা করেছেন। গত ২৭ই নভেম্বর ২০১৭ সালে একাদশ দ্বাদশ শ্রেণীর চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করেছেন SSC । এতে আরও ফেঁসে যায় কমিশন। কারণ সুপ্রিম কোর্টের দেওয়া দুটি অর্ডারকে চরম ভাবে অবমাননা করা হয়েছে। সাংগঠনিক পিটিশনার শিক্ষক ছাত্র ঐক্য সংগ্রাম মঞ্চ গত ডিসেম্বর মাসে এর বিরুদ্ধে একটি অবমাননার মামলা দায়ের করেন কলকাতা হাই কোর্টে।

দীর্ঘদিন পর আজ শুক্রুবার কেসটি উঠে বিচারপতি I. P মুখার্জি এজলাসে । বিচারপতি আগামী ২৯ই জুলাই অবমাননার কারণ জানতে চেয়ে এফিডেভিড জমা করার নির্দেশ দেন। আগামী ১০ই আগস্ট এই মামলার চূড়ান্ত শুনানির দিন ধার্য্য করেছেন। এই মামলার চূড়ান্ত রায় পর্যন্ত SSC কমিশন কোনও নিয়োগ প্রক্রিয়া চালিয়ে যেতে পারবেন না এমনটাই জানা গিয়েছে।

আর এর ফলে হবু শিক্ষকরা একটান প্রশ্ন তুলছেন,  "এই রাজ্যে কি শিক্ষক নিয়োগ  আদৌ সম্ভব? "

No comments