Header Ads

বাজপেয়ীকে নিয়ে কলম ধরলেন অধ্যাপক বিমল শঙ্কর নন্দ।

নজরবন্দি ব্যুরো: অটল বিহারী বাজপেয়ীকে নিয়ে কলম ধরলেন অধ্যাপক বিমল শঙ্কর নন্দ। নিজের ফেসবুক ওয়ালে বুদ্ধিজীবী বিমল শঙ্কর নন্দ যা লিখলেন তা আনএডিটেড তুলে ধরা হল।
১৯৫৭ সালের লোকসভা নির্বাচনে বলরামপুর কেন্দ্র থেকে লোকসভায় নির্বাচিত ৩২ বছরের এক তরুণের বাগ্মিতা দেখে মুগ্ধ জওহর লাল নেহেরু মন্তব্য করেছিলেন 'এই ছেলেটি রাজনীতিতে বহুদূর এগোবে। এক দিন প্রধানমন্ত্রীও হতে পারে।' বহু মানুষ সম্পকে' এ রকম উক্তি করা হয়। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই তা হারিয়ে যায় কালের গতিতে। কিন্তু অটল বিহারী বাজপেয়ী হারিয়ে যান নি। ১৯৫৭ থেকে ২০০৯ পয'ন্ত সময়কালে ১০ বার লোকসভায় এবং ২ বার রাজ্য সভায় নির্বাচিত হয়ে, সর্বোপরি প্রধানমন্ত্রী পদে অধিষ্ঠিত হয়ে তিনি ভারতের রাজনীতিতে হয়ে উঠেছেন এক অনন্যসাধারণ ব্যক্তিত্ব, এক কিংবদন্তী।
রাষ্ট্রবিজ্ঞানে প্রথম শ্রেণীতে এম. এ. ডিগ্রীধারী অটল বিহারী তাঁর জীবনে রাজনৈতিক তত্ত্বকে বাস্তবের সাথে মেলানোর চেষ্টা করেছেন সারাজীবন। ১৯৯৯ সালে প্রধানমন্ত্রী পদে শপথ নেওয়ার আগে এক বেসরকারি চ্যানেলে বিশিষ্ট সাংবাদিক করণ থাপারকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে অটল বিহারী বলেছিলেন যে তাঁর সবচেয়ে বড় দুর্বলতা হল তিনি কাউকে বিলো দ্য বেল্ট আঘাত করতে পারেন না। আবার এটাই তাঁর সবচেয়ে বড় শক্তি। কবি এবং বাগ্মী অটল বিহারী তাই হয়ে উঠেছিলেন এক অন্য ধরনের রাজনীতিবিদ।

রাজনীতির নীতিটার গুরুত্ব তাঁর কাছে ছিল সবচেয়ে বেশী। কোন কিছুর বিনিময়ে তাকে ত্যাগ করা চলে না। সম্ভবত শ্যামাপ্রসাদের সান্নিধ্যই তাঁর রাজনীতির মূল ভিত্তিটিকে তৈরি করে দিয়েছে। ১৯৫৪ সালে শ্যামাপ্রসাদ যখন কাশ্মীরে অ-কাশ্মিরীদের হেনস্থার প্রতিবাদে অনশন শুরু করেন তখন তাঁর পাশে ছিলেন অটল বিহারী। ১৯৯৯ সালে জয়ললিতার দাবী মেনে তাঁর বিরুদ্ধে সব দুর্নীতির মামলা প্রত্যাহার ও তামিলনাড়ুতে করুণানিধি সরকারকে বরখাস্ত করে রাষ্ট্রপতির শাসন জারী করলে সরকারটা টিকে যেত। কিন্তু অটল বিহারী এই ধরনের অনৈতিক কাজ করে সরকার বাঁচাতে রাজী হন নি।
জয়ললিতা সমর্থন প্রত্যাহার করে নেওয়ায় সরকারের পতন হলেও মানুষের মন জিতে নিয়েছিলেন অটল বিহারী। ফলে ১৯৯৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে বিপুল ভোটে জিতে আসতে এন ডি এ -র কোন সমস্যা হয় নি। দেশের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে অনেক অবদানের মধ্যে দুটির কথা বলতে হয়। একটি হল সোনালি চতুর্ভুজ যা এখন ভারতীয় অর্থনীতির অন্যতম লাইফ লাইন। অন্যটি হল প্রধানমন্ত্রী গ্রাম সড়ক যোজনা।যোগাযোগ ব্যবস্থাই একটি দেশকে আধুনিকতার পথে নিয়ে যেতে পারে অটল বিহারী তা বুঝেছিলেন। বাজপেয়ীই প্রথম অ - কংগ্রেসি প্রধানমন্ত্রী যিনি ৫ বছরের বেশী প্রধানমন্ত্রী থাকতে পেরেছিলেন। অটল বিহারী বাজপেয়ীর জন্ম ১৯২৪ সালের ২৫ ডিসেম্বর।

No comments

Theme images by caracterdesign. Powered by Blogger.