Header Ads

najarbandi alok somman 2018

এবার আর SSC নয়, নিয়োগের প্যানেল অনুমোদনের চূড়ান্ত ক্ষমতা পাচ্ছে শিক্ষা দপ্তর!

নজরবন্দি ব্যুরো: এবার নিয়োগ নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবার ক্ষমতা হাতে নিতে চলেছে শিক্ষা দপ্তর। জানা গিয়েছে, এবার থেকে স্কুলের সহকারী প্রধান শিক্ষক নিয়োগের প্যানেলে অনুমোদন দেওয়ার ক্ষমতা নিজের হাতে নিতে চলেছে রাজ্য শিক্ষা দপ্তর। আর এর ফলে কমতে চলেছে ডিআই’দের ক্ষমতা।
নবান্ন সূত্রের খবর, এই ব্যাপারে ফাইল রেডি হয়ে গিয়েছে। শুধুমাত্র ডিআই’দের ক্ষমতা কমানো নয়, এর পাশাপাশি স্কুল পরিচালন কমিটির হাত থেকেও প্রার্থী বাছাইয়ের ক্ষমতা কেড়ে নেওয়ার সম্ভাবনা থাকছে। তবে নিয়োগে স্বচ্ছতা বাড়াতে এবং সহকারী প্রধান শিক্ষকদের অন্য স্কুলে বদলির জটিলতা কমাতে এই উদ্যোগ বলে দাবি। সহকারী প্রধান শিক্ষক নিয়োগ হয়ে থাকে স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির মাধ্যমে। নির্দিষ্ট অভিজ্ঞতা ও শিক্ষাগত যোগ্যতা থাকলে তবেই এই পদে আবেদন করা যায়। যেমন, এই পদে আবেদন করতে হলে পাঁচ বছর পড়ানোর অভিজ্ঞতা থাকাটা বাধ্যতামূলক। পাশাপাশি, অনার্স বা পোস্ট গ্র্যাজুয়েট ডিগ্রি থাকতে হবে।

এর পাশাপাশি শিক্ষক প্রশিক্ষণ ডিগ্রি থাকতেই হবে। অভিজ্ঞতা আর পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বর যত বেশি থাকবে, ততই এগিয়ে থাকবেন কোনও প্রার্থী। তারপর ইন্টারভিউ থাকে। এর পর সিলেক্টেড প্রার্থীর নাম অফিস থেকে অনুমোদন করিয়ে নিতে হয়। সেই প্রক্রিয়াতেই রদবদল আসতে চলেছে। এখন প্রধান শিক্ষক থেকে সহকারী শিক্ষক সব নিয়োগই হয় স্কুল সার্ভিস কমিশনের পরীক্ষার মাধ্যমে। নতুন নিয়ম অনুযায়ী, তাঁদের নিয়োগপত্র দিচ্ছে মধ্যশিক্ষা পর্ষদ। বদলির যে নতুন নিয়ম হয়েছে, তাতে খুব একটা সমস্যা নেই। কিন্তু সহকারী প্রধান শিক্ষককে অন্য স্কুলে বদলের ক্ষেত্রে সমস্যা হচ্ছে।

কারণ, এই পদটি শুধুমাত্র সেই স্কুলের জন্য বৈধ, যেখানে তিনি কর্মরত আছেন। আর এর ফলে সহকারী প্রধান শিক্ষকরাও সমস্যায় পড়ছেন। তাঁরাও পছন্দমতো স্কুলে বদলির সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। রাজ্য সরকারও অন্য স্কুলে বদলি করতে পারছে না বেশকিছু সমস্যা তৈরি হবার কারণে।
Theme images by caracterdesign. Powered by Blogger.