Header Ads

najarbandi alok somman 2018

বন্ধ ব্রম্ভাস্ত্র ব্যার্থ বিজেপির! রাজ্যে আজও গ্রহনযোগ্যতায় এগিয়ে বামেরা।

অরুনাভ সেন: মানুষের স্বতঃস্ফূর্ত বনধ পালন যদি সফল বনধের মাপকাঠি হয়,তবে বলতেই হবে মাত্র সপ্তাহ দুই আগে বামেদের ডাকা বনধ মানুষের আবেগ ও স্বতঃস্ফূর্তায় অনেক পিছনে ফেলে দিল বিজেপির আজকের ১২ঘন্টার বাংলা বনধকে৷প্রেট্রোল-ডিজেলের লাগামছাড়া মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে বাম দলগুলির ডাকা সেদিনের বনধ জনজীবনে যতেষ্ট প্রভাব ফেলতে পেরেছিল৷
অর্থাৎ মানুষ বামেদের ডাকা বনধের ইস্যুর সঙ্গে সহমত পোষন করেছিলেন৷তারাও প্রতিবাদে সামিল হয়েছেন, অনুধাবন করেছিলেন এভাবে লাগাতার পেট্র্র্যোপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি ঘটলে সব মানুষের জীবনে নাভিশ্বাস উঠবে৷সমস্ত জিনিসের দাম বাড়বে৷পেট্র্র্যোপণ্যের লাগাতার মূল্যবৃদ্ধি রুখতে ব্যর্থ কেন্দ্রের মোদি সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে বামেরা বনধকেই বেছে নিয়েছিলেন৷মাত্র সপ্তাহ দুই আগের কথা৷ তৃণমূল অবশ্য মুখে বিজেপি বিরোধীতার কথা বললেও মোদি সরকারের বিরোধীতায় ডাকা সেই বনধকে সমর্থন করেনি,বরং তৃণমূল সরকার বামেদের ডাকা ১২ঘন্টার বনধ ব্যর্থ করার যাবতীয় চেষ্টা করেছে৷


সেদিনের বনধে বাড়তি সরকারি বাস চালিয়ে পরিবহন সচল রাখার চেষ্টা হলেও বেসরকারি পরিবহন প্রায় স্তব্ধ ছিল,যদিও বা অল্পসংখ্যক বেসরকারী বাস ফাঁকা রাস্তায় বের হয়েছিল,কিন্তু অন্যান্য দিনের মত অফিস টাইমে ভিড় বাসের চেনা ছবি দেখা যায়নি৷রাজ্যজুড়ে বেশীরভাগ দোকান,বাজার বন্ধ ছিল৷ মুষ্টিমেয় দোকান, বাজার খোলা থাকলেও ক্রেতার অভাবে ব্যবসায়ীরা সারাদিন মাছি মেরেছেন,কেউ বা কিছুক্ষন অপেক্ষা করে বাড়ি মুখো হয়েছিলেন৷অর্থাৎ বামেদের ডাকা বনধের ইস্যুর প্রতি সাধারন মানুষের নৈতিক সমর্থন ছিল বলেই আজকের তুলনায় সেদিনের বনধ ছিল অনেক বেশী স্বতঃস্ফূর্ত৷কিন্তু ছাত্র মৃত্যুর প্রতিবাদে বিজেপির আজকের বনধকে আদৌ কী সফল বলা যাচ্ছে?অনেক জায়গায় বলপূর্বক বনধ পালন করার চেষ্টা এটাই প্রমান করেছে মানুষের স্বতঃস্ফূর্ত ও নৈতিক সমর্থন আদায় করতে ব্যর্থ হয়েছেন বিজেপি নেতৃত্ব৷


একথা ঠিক রাজ্য বিজেপি বনধকে সফল বলেই দাবি করছেন,উল্টোদিকে শাসক তৃণমূল বলেছে এই বনধে মানুষের এতটুকু নৈতিক সমর্থন পায়নি বিজেপি৷এগুলো রাজনৈতিক কথা,কিন্তু বনধ পালনের স্বতঃস্ফূর্ততায়,জনগনের নৈতিক সমর্থনে বামেদের ডাকা বনধ বিজেপিকে টেক্কা দিল অনেকটাই৷আরও একবার প্রমানিত হল বাংলায় সমাজের সর্বস্তরের মানুষের কাছে বামেদের গ্রহনযোগ্যতা এখনও অনেক বেশী৷অন্তত তাদের বনধে স্বতঃস্ফূর্ততা, সমাজের সর্ব স্তরের মানুষের নৈতিক সমর্থন,আবেগ অপেক্ষাকৃত বেশী ছিল অন্তত বিজেপির আজকের ডাকা ১২ঘন্টা বাংলা বনধের তুলনায়৷এই সত্যকে অবশ্য অস্বীকারের চেষ্টা হবে৷কিন্তু এই রাজ্যে সমাজের সর্বস্তরের মানুষের কাছে গ্রহনযোগ্যতায় বামেরা এখনও বিজেপির থেকে কয়েক কদম এগিয়ে চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিল মাত্র সপ্তাহ দুয়ের ব্যবধানের দুই বনধ৷
Theme images by caracterdesign. Powered by Blogger.