বিজেপি রাজ্য সভাপতির উপর হামলা! আক্রান্ত সংবাদমাধ্যম। অভিযুক্ত তৃণমূল

নজরবন্দি ব্যুরোঃ বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের ওপরে হামলা চললপূর্ব মেদিনীপুরের কাঁথি সেন্ট্রাল বাসস্ট্যান্ড এলাকায়।আজ কাঁথি সেন্ট্রাল বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন এলাকায় বিজেপির কর্মী সভা ছিল। সেই সভাতেই যোগ দিতে গিয়েছিলেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি।

 প্রথমে তাঁকে কয়েকজন কালো পতাকা দেখান, বিজেপির অভিযোগ পাশেই একটি তৃণমূল পার্টি অফিস রয়েছে, সেখানকার ছেলেরাই কালো পতাকা দেখান দিলীপ বাবু কে।এরপরেই বিজেপির কর্মী সমর্থকরা ঘটনাস্থলে থাকা তৃনমূল সমর্থকদের সঙ্গে ব্যাপক ঝামেলায় জড়িয়ে পড়ে। ঝামেলা মেটাতে গিয়েই বেধড়ক মার খান ৫ পুলিশ কর্মী। তারপরেই বিশাল পরিমানে তৃনমূল ও বিজেপি কর্মীরা এলাকায় ছুটে আসে।ঘটনাস্থলে থাকা প্রায় ১৫টি বাইকে ভাঙচুর চালানো হয়। ভেঙে দেওয়া হয় দিলীপ ঘোষের গাড়ির কাঁচ!

এখন পর্যন্ত দুই পক্ষের ৫ জন গুরুতর আহত হয়েছেন। যার মধ্যে বিজেপির ৩ ও বিজেপির বিক্ষুব্ধ গোষ্ঠী ২ জন রয়েছে। ঘটনা কভার করতে গিয়ে আক্রান্ত হন সংবাদমাধ্যমের কর্মীরাও।তারপরেই এলাকার দখল নেয়বিশাল পুলিশ বাহিনী, নামান হয় র‍্যাফ। দিলীপ ঘোষ এবং তাঁর সঙ্গে থাকা বিজেপি নেতা কর্মীদের কাঁথির জনমঙ্গল সংহতি হলের ভেতরে রাখা হয়েছে। আর হলের বাইরে মোতায়েন রয়েছে বিশাল পুলিশ বাহিনী।

দিলীপ ঘোষ জানিয়েছেন, গোটা ঘটনার জন্য দায়ী তৃনমূল। কারন কাঁথি ও রামনগর এলাকায় ব্যাপক হারে জয়ী হয়েছে বিজেপি। দিন কয়েক ধরেই এই এলাকায় বিজেপি নেতা কর্মীরা আক্রান্ত হচ্ছে। আর আজও তাঁরাই উদ্দেশ্য প্রণোদিত হয়েই হামলা চালিয়েছে বিজেপি রাজ্য সভাপতির ওপর।

যদিও তমলুকের সাংসদ দিব্যেন্দু অধিকারী জানিয়েছেন, কাঁথি জনমঙ্গল হলটি কাঁথি পুরসভার হাতে রয়েছে। সেখানেই বিজেপিকে সভা করতে দেওয়া হয়েছে। তাই এই ঘটনায় তৃণমূলের কোনও হাত নেই। তাঁর মতে, কাঁথিতে জেলা সভাপতির পদ নিয়ে দীর্ঘ বিবাদ রয়েছে বিজেপির অন্দরে
DESCRIPTION OF IMAGE

No comments

Theme images by caracterdesign. Powered by Blogger.