দূর্বল হচ্ছে ঘাঁটি? অনুব্রতর হুঁশিয়ারিকে কার্যত উড়িয়ে দিয়ে পাল্টা সভা অনিচ্ছুক কৃষকদের!

নজরবন্দি ব্যুরো: সংগঠন কি দুর্বল হচ্ছে জোড়া ফুলের দুর্ভেদ্য ঘাটি বলে পরিচিত বীরভূমে! এমন প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে তৃণমূলের অন্দরে। বর্তমানে বীরভূমের মুখ্যমন্ত্রী অনুব্রত মণ্ডলের হুঁশিয়ারিকে অগ্রাহ্য করেই সভা করলেন স্থানীয় কৃষকেরা। তাদের মূল দাবি শিল্প হলে জমি নাও, নাহলে জমি ফিরিয়ে দাও। অন্যথায় সিঙ্গুর মডেলে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দিয়ে রাখলেন কৃষকরা।
উল্লেখ, ২০০২ সাল নাগাদ বাম জামানায় শিল্পস্থাপনের জন্য বোলপুরের শিবপুর মৌজায় ৩০০ একর জমি অধিগ্রহণ করা হয়। সেই সময় এই প্রজেক্টের বিরোধিতা করে ছিলেন অনুব্রত মণ্ডল নিজেই। এর পরে ২০১১ সালে ক্ষমতায় আসে তৃণমূল সরকার। সেই সময়ের শিল্পমন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেই ওই অধিগ্রহণ করা জনিতে হবে কেমিক্যাল হাব। কিন্তু পরবর্তী কালে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানান ওখানে হবে গীতবিতান নামের একটি আবাসন। আর এতেই চাষীদের মধ্যে ক্ষোভ তৈরি হয়।

তাদের দাবি শিল্পের জন্য যে জমি আমাদের থেকে নেওয়া হয়েছে সেখানে শিল্প করতে হবে। আবাসন করা চলবে না। এই দাবিতে ১৯ শে আগস্ট শিবপুরে একটি সভাও করেন কৃষকরা। এর পর ওখানে পাল্টা একটি সভা করেন অনুব্রত মণ্ডল। সেখানে বলা হয়, "উন্নয়নে বাধা দিলে ছাড়বো না।" কিন্তু এদিনের সভা থেকে কার্যত অনুব্রতর হুঁশিয়ারিকে উড়িয়ে দিলেন অনিচ্ছুক কৃষকরা।
DESCRIPTION OF IMAGE

No comments

Theme images by caracterdesign. Powered by Blogger.