Header Ads

মৃত্যুর পর মান্যতা সিপিআইএমের! রক্ত পতাকাচ্ছাদিত শেষ শয্যায় 'কমরেড' অনিল বসু।

নজরবন্দি ব্যুরো: অনিল বসু, এই রাজ্যের বাম রাজনীতির অন্যতম কাণ্ডারী। সময়টা ছিল ১৯৮৪ প্রথমবার সিপিআইএম তাঁকে আরামবাগ কেন্দ্র থেকে লোকসভা নির্বাচনে লড়াই করতে পাঠায়। সেই শুরু, তারপর থেকে টানা ছ-বার! প্রতিবারেই জয় রেকর্ড ভোটে।
২০০৪ সালের লোকসভা নির্বাচন, অনিল জিতেছিলেন ৫ লাখ ৯২ হাজার ৫০২ ভোটে। এই রেকর্ড আজও সবার অধরা। এর পর ২০১২ সালে দল-বিরোধী কাজের দায়ে অনিল বসুকে বহিষ্কার করে সিপিআইএম নেতৃত্ব। আজ বর্ণময় চরিত্রের সাড়ে তিন দশকের সাংসদ প্রয়াত হলেন একটি বেসরকারি হাসপাতালে। কিডনির সমস্যা ভুগছিলেন অনেক দিন। চলছিল ডায়ালিসিস। আগস্ট মাসে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল তাঁকে। আজ সকালেই তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন।
আর এর পরেই এই রাজ্যের বাম মনস্ক সাধারণ মানুষের মনে একটাই প্রশ্ন উঠতে থাকে, রক্ত পতাকাটা কি অধরাই থেকে যাবে অনিল বসুর? শেষে বাম সমর্থকদের চাপে রাজ্য সিপিআইএম দলের সমস্ত বাধাকে উপেক্ষা করে রক্ত পতাকায় ঢেকে দেয় অনিল বসুর মৃতদেহ। আর পার্টির এই সিদ্ধান্তের ফলে বাম সমর্থকরা বলতে শুরু করেছে অনিল বসুর পথ ছিল সঠিক। এখন দরকার আর একটা অনিল বসু। আর তা হলেই আবার হুগলী দখল সম্ভব।
DESCRIPTION OF IMAGE
Theme images by caracterdesign. Powered by Blogger.