Header Ads

অযথা 'দাও দাও' নয়, পে ব্যান্ড ২ থেকে ৩ নয়! প্রাথমিকে কেন চাই PRT স্কেল? পড়ুন

নজরবন্দি ব্যুরোঃ মুখ্যমন্ত্রী জানিয়ে দিয়েছেন অযথা দাও দাও করবেন না! কিন্তু এ রাজ্যের প্রাথমিক শিক্ষকরা কি সত্যিই অযথা 'দাও দাও' করছেন? আসল তথ্য তাহলে কি? কতটা বঞ্চিত হচ্ছেন রাজ্যের প্রাথমিক শিক্ষকরা?
যে ব্যানারে গড়ে ওঠা প্রাথমিক শিক্ষকদের আন্দোলন রাজ্য রাজনীতিতে আলোড়ন ফেলে দিয়েছে সেই উস্থি ইউনাইটেড প্রাইমারী টিচার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশানের দাবী NCTE নির্ধারিত PRT স্কেল পেলে প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন হওয়ার কথা বেসিক-১৩,৫০০টাকা, ডিএ-১৩,৫০০টাকা, এইচআরএ-২,০২৫টাকা, এমএ-৩০০টাকা অর্থাৎ মোট ২৯,৩২৫টাকা!
কিন্তু ২০০৯ রোপা অনুযায়ী পে ব্যান্ড-২ এর আওতায় প্রাথমিক শিক্ষকরা  এখন বেতন পান IR ছাড়া, বেসিক-৮০০০টাকা, ডিএ-৮০০০টাকা, এইচআরএ-১,২০০টাকা, এমএ-৩০০টাকা অর্থাৎ মোট ১৭,৫০০টাকা। অন্যদিকে সম যোগ্যতায় মাদ্রাসা শিক্ষকদের বেতন দেওয়া হচ্ছে পে ব্যান্ড -৩ অনুযায়ী! যা হল বেসিক-১০,৩০০টাকা, ডিএ-১০,৩০০টাকা, এইচআরএ-১,৫৪৫টাকা, এমএ-৩০০টাকা অর্থাৎ মোট ২২,৪৪৫টাকা!
সংগঠনের আশঙ্কা পিআরটি স্কেল না দিয়ে হয়ত পে ব্যান্ড ৩ দিয়ে আন্দোলন কে থামাতে চাইবে রাজ্য। কিন্তু উস্থি ইউনাইটেড প্রাইমারী টিচার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশান সূত্রে জানা গেছে পিআরটি স্কেল না পাওয়া পর্যন্ত কোন প্রলোভনেই পা দেবেন না তাঁরা। 
Theme images by sndr. Powered by Blogger.