লোকসভার আগে রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের বেতন বৃদ্ধি কি সম্ভব? কি ভাবছে সরকার ? বিশেষ প্রতিবেদন।

নজরবন্দি ব্যুরো: ডিএ নিয়ে রাজ্য সরকারি কর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ অনেক দিনের। আগের সরকারের সময় এই ক্ষোভ যে একদম ছিল না তা নয়। কিন্তু বর্তমান রাজ্য সরকারের সময়ে সেই ক্ষোভ বহু গুনে বেড়েছে। আর তা সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছে রাজ্য।

২০১৮-র জুন মাসেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঘোষণা করেছিলেন, সরকারি কর্মীদের বর্ধিত হারে ডিএ দেওয়া শুরু হবে ২০১৯-এর জানুয়ারি থেকে। অর্থাৎ একবছর আগে ঘোষণা করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। আর মুখ্যমন্ত্রীর কথা মতন রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের ডিএ বাড়বে ১৮ শতাংশ।
সেই ঘোষণা চলতি মাস থেকেই রূপায়িত হচ্ছে। আর তার পরেই উঠছে আর এক বিতর্ক। কেন্দ্রীয় হারে ডিএ না হলেও ষষ্ট বেতন কমিশন নিয়ে রাজ্য সরকারের ভাবনা কি?

এই বিষয় নিয়ে নবান্নের কাছে এখনও কোনও উত্তর নেই। তবে যেটা জানা গিয়েছে, এই কমিশন চালু করতে গেলে প্রচুর অর্থের দরকার।
আর তাই সরকার ‘ধীরে চলো’ নীতি নিয়ে চলছে। সেই সরকারের নির্দেশ মতো ধীরে শুনানি চালাচ্ছে অর্থনীতিবিদ অভিরূপ সরকারের কমিশন। ইতিমধ্যে তিন বার কমিশনের মেয়াদ বাড়ানো হয়ে গিয়েছে। আগামী জুনে শেষ হচ্ছে বর্তমান মেয়াদ। তার আগে কমিশনের রিপোর্ট জমা না পড়ার সম্ভাবনা বেশি।
এমনটাই জানা গিয়েছে নবান্ন সূত্রে। ওই সূত্র আরও জানাচ্ছে এখন বর্ধিত বেতন চালু করতে হলে প্রথম বছরেই যে পরিমাণ টাকা লাগবে তাতে আর্থিক ভাবে সমস্যায় পড়তে পারে রাজ্য সরকার। আর সেটা বুঝে রাজ্য সরকার পিছিয়ে যাচ্ছে। বর্তমানে রাজ্য সরকারের কোষাগারের যা অবস্থা তাতে কোনও ভাবেই নতুন বেতন-কাঠামো কার্যকর করা সম্ভব নয়।

Loading...

No comments

Theme images by caracterdesign. Powered by Blogger.