চাকরি হারাতে পারেন অনেক শিক্ষক? কোন যুক্তিতে নিয়োগ প্রক্রিয়া চলছে জানতে চাইল আদালত।

নজরবন্দি ব্যুরো: স্কুল সার্ভিস কমিশনের মাধ্যমে ইতিমধ্যে বেশকিছু শিক্ষক হয়েছে রাজ্যে। কিন্তু ওই নিয়োগের ভবিষ্যৎ নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। আর এই নিয়োগ করতে গিয়ে আদালত অবমাননার অভিযোগ তুলছেন হবু শিক্ষকরা। আদালতে যদি কমিশন অবমাননা করছে প্রমাণিত হয়, তাহলে নিয়োগ প্রক্রিয়া ও নিযুক্ত শিক্ষকদের ভবিষ্যৎ কি হবে তা বিচার করবে আদালত।
পরীক্ষার্থীদের একটা বড় অংশের অভিযোগ, কমিশনের ভুল সিদ্ধান্তের জন্য নিয়োগ প্রক্রিয়া ক্রমশই জটিল হচ্ছে।
আর এই কারণে শিক্ষক নিয়োগের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হচ্ছে আদালতে। রাজ্য সরকার আদালতকে গুরুত্ব না দিয়ে নিজের ইচ্ছামতন নিয়োগ-প্রক্রিয়া চালিয়ে গিয়েছে বলে অভিযোগ।
গত শুক্রবার বিচারপতি ইন্দ্র প্রসন্ন মুখার্জির সিঙ্গেল বেঞ্চ ২০১২ সালের হবু শিক্ষকদের করা মামলায় বিচারপতি তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, "সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ থাকা সত্ত্বেও নতুন ভাবে নিয়োগ-প্রক্রিয়া কিভাবে চলছে?" তিনি আর ও বলেন," সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে বলা আছে পরীক্ষা নেওয়া যাবে কিন্তু ফল প্রকাশ করা যাবে না। পরীক্ষার ফল মুখ বন্ধ করা খামে আদালতে জমা দিতে হবে।"
এই নির্দেশ কমিশন কিভাবে মেনে চলছে তার রিপোর্ট দেখতে চাইল ইন্দ্র প্রসন্ন মুখার্জির সিঙ্গেল বেঞ্চ।
জানা গিয়েছে,  ২০১২ সালে ১২তম আরএলএসটি নিয়োগ প্রক্রিয়ায় চূড়ান্ত মেধাতালিকায় নাম থাকা সত্ত্বেও নিয়োগ পাননি বেশ কিছু পরীক্ষার্থী।
এরই ভিত্তিতে কলকাতা হাই কোর্টের মামলা দায়ের হয়। গত ১১ই সেপ্টেম্বর ২০১৭ সালের চাকরির নির্দেশ দিলেও তা কার্যকর করেননি কমিশন। একদিকে পুরনো চাকরি প্রার্থীদের চাকরি না দিয়ে স্কুল সার্ভিস কমিশন আবার নতুন করে শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করার অভিযোগ। এর পরে আপত্তি জানিয়ে আদালত অবমাননার অভিযোগ দায়ের করেন কলকাতা হাই কোর্টে। এই মামলার পরবর্তী শুনানি হবে ৮ ফেব্রুয়ারি।

Loading...

No comments

Theme images by caracterdesign. Powered by Blogger.