শিক্ষামন্ত্রীর পদত্যাগ নয়, প্রশ্নফাঁসে CID তদন্তের নির্দেশ রাজ্যের। গ্রেফতার পাঁচ!

নজরবন্দি ব্যুরোঃ আজ মাধ্যমিকের অঙ্ক বিষয়ে পরীক্ষা গ্রহন শুরু হবে কিছুক্ষনের মধ্যেই। এর আগে ৪ টি  বিষয়ে যথাক্রমে বাংলা, ইংরাজি, ইতিহাস এবং ভূূূগোলের প্রশ্ন পত্র ফাঁসের মতো ঘটনা ঘটেছে।
নজরবন্দির দফতরেও এসে পৌঁছেছে সেই 'লিক' হওয়া প্রশ্নপত্র। এই সরকারের আমলে বহুবার প্রশ্ন ফাঁস হবার অভিযোগ উঠেছে কিন্তু লাগাতার চারদিন অর্থাৎ মাধ্যমিক স্ট্যান্ডার্ডের পরীক্ষায় প্রশ্ন ফাঁসের মত ঘটনা পশ্চিমবঙ্গ কেন ভারতের ইতিহাসেই সম্ভবত কোনদিন ঘটেনি।একে বলা চলে হ্যাট্রিক নয় ফোরট্রিক।
এই ঘটনায় রাজ্য সরকারের ব্যার্থতাকে একহাত নিয়েছেন সিপিআইএম নেতা তথা বিধানসভার বামপরিষদীয় দলনেতা সুজন চক্রবর্তী। প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে তিনি বলেছেন "অপদার্থ ওয়ার্থলেস একটা দায়িত্বজ্ঞানহীন সরকার চলছে। এখন মুখ্যমন্ত্রীর অনুপ্রেরনায় স্কুল কমিটিগুলো একমুখী মনোভাবে চলছে। সবটাই তো শাসক দল তার বাইরে কিছু না।" পাশাপাশি লাগাতার চারদিন প্রশ্ন ফাঁসের মত ঘটনায় শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ে পদত্যাগ দাবি করে সুজন চক্রবর্তী বলেন, "শিক্ষামন্ত্রীর অবিলম্বে পদত্যাগ করা উচিত এবং মধ্যশিক্ষা পর্ষদের চেয়ারম্যান কে অবিলম্বে পদচ্যুত করা উচিত"।
অন্যদিকে রাজ্য এই ঘটনায় CID তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে। ডিএসপি পদমর্যাদার অফিসারের নেতৃত্বে গঠন হয়েছে সিট। প্রশ্নফাঁস কাণ্ডে সন্দেহভাজন ৫ জন কে বর্ধমানের মেমারি থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে।   
উল্লেখ্য, পরীক্ষা শুরুর আগে বেশ কিছু সতর্কতা মূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছিল মধ্য শিক্ষা পর্ষদ, কিন্তু তাতে যে সেরকম কাজ হয়নি তা আর বলার অপেক্ষা রাখেনা।কি কি ছিল সেই নিয়ম? পরীক্ষার্থীদের জন্যে নিয়মঃ কেউ মোবাইল নিয়ে পরীক্ষাকেন্দ্রে ঢুকতে পারবে না। মোবাইল ধরা পড়লে পরীক্ষা দিতে দেওয়া হবে না। খাতা RA করা হবে এবং পরীক্ষার পর ধরা পড়লে উত্তরপত্র RA করা হবে।
শিক্ষক, অশিক্ষক কর্মচারী-দের জন্যে নিয়মঃ মোবাইল সুইচ অফ করে প্রধান শিক্ষকের ঘরের আলমারিতে রাখতে হবে। যার চাবি থাকবে প্রধান শিক্ষকদের কাছে।
মোবাইল ব্যবহার করতে পারছেন শুধুমাত্র সেন্টার সেক্রেটারি, অফিস ইনচার্জ, ভেনু ইনচার্জ, ভেনু সুপারভাইজার, ভেনু অ্যাডিশনাল সুপারভাইজার! এত সবের পরেও ঠেকানো গেলনা প্রশ্নপত্র ফাঁস। তবে গাফিলতি কার? এতো সর্ষের মধ্যেই ভূত!! সোশ্যাল মিডিয়ায় শিক্ষা দফতরের উদ্দেশ্যে করা হয়েছে কটাক্ষ। নিশানা থেকে বাদ জাচ্ছেন না খোদ শিক্ষামন্ত্রীও।
প্রশ্ন উঠছে কি ভাবে পরীক্ষা গ্রহন চলছে? কেমন ভাবেই বা দেওয়া হচ্ছে গার্ড? তবে কি ইচ্ছাকৃত ভাবে সর্বসম্মতিতেই ঘটছে প্রশ্ন ফাঁসের মত ঘটনা?
Loading...

No comments

Theme images by caracterdesign. Powered by Blogger.