তাঁর ভবিষ্যৎবানী ফলছে অক্ষরে অক্ষরে! রাজীবের পর কি তাহলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়?

নজরবন্দি ব্যুরোঃ দোষী আমি তাঁকে এখনই বলতে চাইনা, কিন্তু সারদা চিটফান্ড তদন্তের স্বার্থে মুখ্যমন্ত্রীক্র অবশ্যই ডাকা উচিত! বক্তা গৌতম দেব। তবে এই বক্তব্য আজকের নয়। সারদা কান্ড ঘটার পরে কয়েক বছর আগে  এক বৈদ্যুতিক সংবাদ মাধ্যমের সামনে একথা বলেছিলেন গৌতম দেব।
নস্ট্রাডামুস তিনি নন কিন্তু ফেলুদার নব্য সংস্করণ বললে কি খুব ভুল বলা হবে? একটু ফিরে দেখা যাক, সারদা তদন্ত শুরু হয়েছে-সিট-বিধাননগর পুলিশ কমিশনারেট তদন্তে চরম ব্যাস্ত। আর সেই তদন্ত প্রসঙ্গেই বৈদ্যুতিক সংবাদমাধ্যমে গৌতম দেবের সেই বিস্ফোরক সাক্ষাতকার। সাংবাদিকের প্রশ্নের উত্তরে ঠিক কি বলেছিলেন গৌতম দেব হুবহু দেওয়া হল পাঠকদের জন্যে।
"মুখ্যমন্ত্রী নিজে এটা(চিটফান্ড কান্ড) জানতেন কি হচ্ছে না হচ্ছে। তৃণমূল পার্টির যে ইলেকশন ফান্ড, যে টাকা খরচা হত তা কোথা থেকে তুলতেন? এতদিন উনি(মমতা) বলতেন আমি ছবি বিক্রির টাকায় সব করি, কিন্তু আমি খুঁজে পেয়েছি কাগজ যেটাতে পরিষ্কার বলা আছে তৃণমূলের নির্বাচনে ব্যাবহৃত টাকার মাত্র ১৭% এসেছে ছবি বিক্রি করে! বাকি টাকা উনি কোথা থেকে যোগাড় করতেন?
অ্যাম্বুলেন্সে করে বস্তা বস্তা টাকা আসত, মমতা ব্যানার্জী জানে না? জঙ্গল মহলে অ্যাম্বুলেন্স দিয়েছিল সেই অ্যাম্বুলেন্সে ক্যাশ টাকা আসত। এই সব আমরা জানতে পারছি আর মমতা ব্যানার্জী জানে না?"
এর পরেই সাংবাদিকের প্রশ্নের বাউন্সার, বিধাননগর কমিশনারেট তো আপনাকে ডেকেছিল নির্বাচনের জন্যে যাননি কিন্তু সিবিআই ডাকলে যাবেন?
বাউন্সার কে ওভার বাউন্ডারি মেরে গৌতম দেবের উত্তর, "সিবিআই ডাকলে অবশ্যই যাব তাছাড়া বিধাননগর কমিশনারেট আবার কি বলবে ওদের তো এবার সিবিআই ডাকবে! আমার পুলিশের জন্যে দুঃখ হয়, যুবক কম বয়েশি পুলিশ অফিসার। আমি শুনেছি এদের মধ্যে কয়েকজন দারুন কর্মঠ অফিসার কিন্তু কেন এমন করতে গেল জানি না। পুলিশ কে সিবিআইএর কাছে উত্তর দিতে হবে যাকে ডাকার কোথা তাঁকে না ডেকে অন্য কে আটকে রেখেছ কেন? সুতরাং মমতাও মরবে, সুদীপ্তও মরবে, কুণালও মরবে আর যে পুলিশ অফিসাররা এতে সঙ্গ দিয়েছে তারাও মরবে!  "
DESCRIPTION OF IMAGE
Loading...

No comments

Theme images by caracterdesign. Powered by Blogger.