সরকারি কর্মচারীদের বড় জয়! রাজ্যকে কেন্দ্রীয় হারে মহার্ঘ্য ভাতা দেবার নির্দেশ স্যাটে। #Exclusive

নজরবন্দি ব্যুরো: রাজ্য সরকারি কর্মীদের ডিএ দেওয়া নিয়ে বিতর্ক অনেক দিন ধরে চলে আসছে। রাজ্য সরকারের কাছে আবেদন জানিয়ে কোনও ফল না পাওয়াতে বকেয়া ডিএ-র দাবিতে আদালতে মামলা করেছেন রাজ্য সরকারি কর্মীদের একাধিক সংগঠন। সেই মামলার শুনানিতে আদালতের তরফে রাজ্য সরকারি কর্মীদের কত পরিমাণ ডিএ বাকি আছে তা জানতে চাওয়া হয় রাজ্য সরকারের কাছে। এছাড়াও যে সমস্ত প্রশ্ন গুলো রাজ্যকে করা হয়েছে তা হল, কেন্দ্রের তুলনায় রাজ্য সরকারি কর্মীরা ডিএ বাবদ কত টাকা কম পাচ্ছেন এবং কতদিন পর ডিএ পাচ্ছেন কর্মীরা?

রাজ্য সরকারের তরফেও ডিএ না দেওয়ার একাধিক কারণ দেখানো হয়েছে বিভিন্ন সময়ে। কখনো বলা হয়েছে, সব বকেয়া ডিএ শোধ করে দেওয়া হয়েছে। কখনো বা সরকার বলেছে, ডিএ রাজ্য সরকারের দয়ার দান। তা দেওয়া সম্পূর্ণ সরকারের ইচ্ছার ওপর নির্ভরশীল। কিন্তু ডিএ যে কোনও দয়ার দান নয় তা জেনে রাখা উচিত যেকোন সরকারী কর্মচারী-র। ডিএ হল ডিয়ারনেস অ্যালাওয়েন্স বা মহার্ঘ্য ভাতা। বাজার মূল্যের নিরিখে বাড়ানো হয় এই ভাতা। আরও নির্দিষ্ট করে বলতে গেলে বলা যায়, ডিএ দেওয়া আসলে সরকারি কর্মীদের মাইনে বাড়ানো নয়, বরং মাইনের কমে যাওয়াকে রোধ করা।
বাজার মূল্য যেহেতু নির্ধারণ করে সরকার তাই সেই বর্ধিত বাজার মূল্যের সাথে তাল মিলিয়ে জীবনযাত্রার মান যাতে একই থাকে সেই দিকে নজর রাখাও সরকারেরই কর্তব্য। তাই সরকারি কর্মচারীদের প্রাপ্য ডিএ মিটিয়ে দেওয়ার যে মামলা আদালতে রয়েছে তা সর্বতোভাবে যুক্তিসংগত। উল্লেখ্য, ২০১৬ সালে রাজ্য সরকারি কর্মীদের সংগঠন কনফেডারেশন অফ স্টেট গভর্নমেন্ট এমপ্লয়িজ কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মীদের সঙ্গে রাজ্যের সরকারি কর্মীদের ডিএ বৈষম্য মেটানোর দাবিতে স্যাটে মামলা করে। ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে স্যাট রায় দেয় ডিএ সরকারি কর্মীদের অধিকার নয়! এই রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে ২০১৭ সালেই হাইকোর্টে মামলা করেন সরকারি কর্মীরা, ২০১৮ সালের ৩১ আগস্ট সেই মামলার রায়ে বিচারপতি দেবাশিস করগুপ্ত এবং বিচারপতি শেখর ববি শরাফের ডিভিশন বেঞ্চ জানায় ডিএ সরকারি কর্মীদের আইনসঙ্গত অধিকার, কিন্তু সেই মামলা আবার স্যাটে পাঠিয়ে নির্দেশ দেন রাজ্য সরকারের কর্মীরা কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মীদের হারে বেতন পাবেন কি না তার চূড়ান্ত ফয়সালা করবে স্টেট অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ ট্রাইব্যুনাল বা স্যাট৷
এখন রাজ্য সরকারি কর্মীরা ১২৫ শতাংশ হারে মহার্ঘ ভাতা পাচ্ছেন, যা কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মীদের থেকে ৫৬% কম৷ বহু প্রতীক্ষিত এই মামলার রায়দান হয়ে গেল আজ, রাজ্য ট্রাইবুনালের দুই বিচারপতি রঞ্জিত কুমার বাগ এবং সুবেশ কুমার দাস এই মামলার রায় দেন। রায় কর্মচারীদের পক্ষেই গিয়েছে।  আজ দীর্ঘ সওয়াল জবাবের পর এবার রাজ্য সরকারকে কড়া নির্দেশ দিল স্যাট। মামলার শুনানিতে বিচারক জানিয়ে দিয়েছে, কেন্দ্রীয় হারেই দিতে হবে রাজ্য সরকারি কর্মীদের মহার্ঘ ভাতা বা ডিএ। যদিও এক বছরের মধ্যেই তা কার্যকর করার কথা বলা হয়েছে। আগামী তিন মাসের মধ্যেই মহার্ঘ ভাতার হার নির্ধারণ করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এই মামলায় পরাজয়ের পর রাজ্য সরকার উচ্চ আদালতে যেতে পারে বলে মনে করছে আইনজীবীরা। 
Loading...

No comments

Theme images by caracterdesign. Powered by Blogger.