জোতিপ্রিয়র গড়ে ভারতীর হানা! 'দিদি কে বলো' দিয়েও রোখা যাচ্ছেনা বিজেপি-তে যোগদান।

নজরবন্দি ব্যুরোঃ গত পঞ্চায়েত নির্বাচনেই ইঙ্গিত পাওয়া গিয়েছিল রাজ্যের শাসক দল নিয়ন্ত্রন হারাচ্ছে জনসাধারনের মন থেকে অন্যদিকে ধিরে ধিরে সিপিআইএম কে পাশ কাটিয়ে তৃণমূলের ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলে রাজ্যের প্রধান বিরোধী দল হিসেবে উঠে আসছে বিজেপি। সেই ধারা বজায় থেকেছে সাম্প্রতিক লোকসভা নির্বাচনে। তৃণমূল ২২টি আসন পেলেও ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলে বিজেপি পেয়েছে ১৮টি আসন, ভোট শতাংশেও তৃণমূলের প্রায় কাছাকাছি ভোট পেয়েছে তারা। ২০২১ সালে রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচন হবে নিয়ম অনুসারে, উভয়পক্ষই এখন থেকে স্ট্র্যাটেজি সাজাতে শুরু করেছে।
তৃণমূলের যখন ক্যাম্পেন চলছে 'দিদিকে বলো' তখন বিজেপি নেমেছে সদস্য সংগ্রহ অভিযানে। রাজ্য জুড়ে ৬০ লক্ষ সদস্য সংখ্যার টার্গেট রয়েছে বিজেপি-র। গত ৬ই জুলাই থেকে শুরু হওয়া সদস্যতা অভিযানের লক্ষমাত্রার প্রায় ৮৫% ইতিমধ্যেই সম্পূর্ন হয়েছে খবর রাজ্য বিজেপি সূত্রে। লোকসভার আগে এবং পরে বিজেপি যোগদানের যে ঢল রাজ্যে নেমেছিল তা এখনও অব্যাহত। উত্তর ২৪ পরগনার পানিহাটি এলাকায় গতকাল বিজেপি নেত্রী ভারতী ঘোষের হাত ধরে প্রায় ৫০০ জন তৃণমূল সহ বিভিন্ন দলের কর্মীরা যোগ দেন বিজেপি-তে।
এদিন পানিহাটিতে সদস্যতা অভিযানে অংশ নিয়ে ভারতী ঘোষ কটাক্ষ করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে। 'দিদিকে বলো' ইস্যু হাতিয়ার করে আক্রমন শানান ভারতী। তিনি বলেন, দিদিকে বলো শুধুমাত্র তৃণমূলের বিজ্ঞাপন। ওই নাম্বারে ফোন করলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কোনদিনই তা ধরবেন না।কারন 'দিদি' মুখ্যমন্ত্রী আর একজন মুখ্যমন্ত্রীর অনেক কাজ। তাঁর সাধারণ মানুষের ফোন ধরার মত সময় থাকে না। 
Loading...

No comments

Theme images by caracterdesign. Powered by Blogger.