"দিদিকে বলো" জনসংযোগের এক মহাযজ্ঞ!

অমিত সরকারঃ দিদিকে বল কর্মসূচি কতটা সফল কতটা বিস্ফোরিত সময় বলবে তবে এর পিকে অবদান রয়েছে তা অনস্বীকার্য বলে মনে করছে তৃণমূলের অন্দরমহল তবে এ নিয়ে রাজনৈতিক তরজা ও কম হচ্ছে না দলের নিচু তলার কর্মীদের মাধ্যমে জনসংযোগ বৃদ্ধি এবং দলকে আন্দোলনমুখী করার বার্তা দিতেই বৈঠক ডাকেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সরাসরি ‘দিদির’ সঙ্গে কথা বলার জন্য এদিন একটি মোবাইল নম্বর ও একটি ওয়েবসাইট চালু করেন তিনি। তৃণমূল নেত্রী বলেন, “জনগণের সঙ্গে জনসংযোগ, সোজাসুজি তাঁদের কথা আমাকে জানবার জন্য, একটা ফোন নম্বর দিচ্ছি। সেটি হল- ৯১৩৭০৯১৩৭০ এবং ওয়েবসাইটটি হল- www.didikebolo.com। কোনো কথা বলার থাকলে এই নম্বরে বলুন”।
 তৃণমূল নেত্রী বলেন, “বুথ স্তরের কর্মীদের যোগাযোগ করার নতুন প্রক্রিয়া শুরু হল এবার থেকে। গ্রাম পঞ্চায়েত, জেলা পরিষদ সবার সঙ্গে যোগাযোগও স্থাপন হবে। আমরা আধুনিকতম ব্যবস্থা নিয়ে তাঁদের কাছে পৌঁছে যাব এবং তাঁদের মতো করে তাঁদের কথা শোনা হবে এবার থেকে”। হেল্পলাইন সক্রিয় হওয়ার পর থেকেই টেলিফোনের জোয়ার সামলাতে দায়িত্বপ্রাপ্ত সংস্থাকে পরিকাঠামো বৃদ্ধির পথে হাঁটতে হয়েছে। জনতার ফোন ধরার জন্য ২৫০ জন প্রশিক্ষিত কর্মী কাজ করছেন বলে মঙ্গলবারই টুইট করে জানানো হয়েছে। ২৪ ঘণ্টায় এক লক্ষেরও বেশি কল এসেছে। ‘দিদিকে বলো ডট কম’-এও পঞ্চাশ হাজারের বেশি মানুষ তাঁদের সমস্যা এবং মতামত জানিয়েছেন। ফোন আসার ধুম থেকেই বোঝা যাচ্ছে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে বিহিত চাইতে মুখিয়ে আছেন বহু মানুষ।
 তৃণমূলনেত্রী কেন্দ্রীয় ভাবে জনসংযোগ প্রকল্পটি ঘোষণা করার পর বিধায়করা যে যাঁর নিজের এলাকায় সাংবাদিক বৈঠক করে জোরদার প্রচারের পথে হাঁটছেন। ই নম্বরে জানানো যাবে ‘দিদিকে বল’ নিয়ে অভিমত৷ এর পাশাপাশি, এবার দিদিকে বল প্রকল্পে রাখা হয়েছে পুরস্কার জেতার সুযোগ৷ রাজনৈতিক মহলের মত, ‘দিদিকে বল’-কে আরো আকর্ষণীয় করতে দেওয়া হয়েছে পুরস্কারের টোপ৷ দিদিকে বল এই প্রকল্পের দায়িত্বে রয়েছে আইপ্যাক মিডিয়া৷ তাদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে দিদিকে বল নম্বরে এখনও পর্যন্ত দুই লক্ষ মানুষ তাদের সমস্যা জানিয়েছেন৷


Loading...

No comments

Theme images by caracterdesign. Powered by Blogger.