মুচলেকা দিতে হবে তবেই এই 'সুবিধা' পাবেন রাজ্য সরকারি কর্মীরা।#Exclusive

নজরবন্দি ব্যুরোঃ হোম ট্র্যাভেলস কনসেশন (এলটিসিতে) শর্ত আরোপ করে দিল রাজ্য সরকার। বিগত বাম আমল থেকেই সরকারী কর্মচারীদের স্যন্ডিং অর্ডার ছিল। অর্থাৎ অবসরগ্রহণের ৪ বছর আগে সরকারি কর্মচারীরা দেশের কোথাও ভ্রমণ করলে এলটিসির মাধ্যমে রেল, বিমান ভাড়া পেয়ে থাকতেন। ত্রিপুরা এবং আন্দামান নিকোবর ভ্রমণের জন্য একমাত্র বিমান ভাড়া পাওয়া যেত। সঙ্গে সরকারি কর্মাচারীদের পদমর্যাদার নিরিখে বিমান কিংবা রেল ভাড়া পাওয়ার সুযোগ ছিল।
কিন্তু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার এবার এই এলটিসি প্রদানের ওপড়ে শর্ত চাপিয়ে দিয়েছে।
নতুন নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, অপারেটঅরদের সঙ্গে প্যাকেজ ট্যুর করা চলবে না। এমন নির্দেশ জারি করেছে রাজ্যের অর্থ দফতর। নবান্ন সূত্রে খবর, প্যাকেজ ট্যুরে যাতায়াত ভাড়াও ছাড়াও থাকা এবং খাওয়ার খরচ ধরা থাকে। কিন্তু নয়া নির্দেশিকায় পরিস্কারভাবে বলা হয়েছে, শুধুমাত্র যাতায়াত খরচ দেব সরকার। থাকা এবং খাওয়ার খরচ দেবে না রাজ্য সরকার। বিমান, রেল, বাসের টিকিট কাটতে হবে ওয়েবসাইটের মাধ্যমে কিংবা বুকিং কাউন্টার থেকে।
এলটিসির বিল জমা দেওয়ার সময়ে রাজ্য সরকারের কাছে সংশ্লিষ্ট সরকারি কর্মাচারীকে মুচলেকা দিয়ে জানাতে হবে, তিনি এলটিসির জমা দেওয়া বিলের মধ্যে কোনভাবেই থাকা এবং খাওয়ার খরচ দাবি করছেন না। নয়া নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, নয়া নির্দেশিকা না মানলে সংশ্লিষ্ট সরকারি কর্মচারির বিরুদ্ধে দফতরের অভ্যন্তরীণ তদন্ত হবে এবং আইন অনুযায়ী কড়া ব্যবস্থাই নেওয়া হবে।
এইপ্রসঙ্গে আইএনটিইউসির সাধারণ সম্পাদক মলয় মুখোপাধ্যায় সাফ জানিয়েছেন, 'সরকারি কর্মচারিদের মুচলেকা দেওয়ার বিষয়টি লজ্জাজনক'। এখানেই থেমে না থেকে মলয় মুখোপাধ্যায় বলেন, 'ইতিপূর্বে এলটিসিকে কেন্দ্র করে যে সমস্ত দুর্নীতি হয়েছে, তার তদন্ত করা উচিত। যদি কোন সরকারি আধিকারিক এই দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত থাকেন তাহলে আইন অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট আধিকারিকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে'।     


Loading...

No comments

Theme images by caracterdesign. Powered by Blogger.