Header Ads

রাজ্যপালের ডাকা প্রশাসনিক বৈঠকে গরহাজির রাজ্যের শাসক দলের জনপ্রতিনিধিরা, ক্ষুব্ধ রাজ্যপাল।

নজরবন্দি ব্যুরো: উত্তরবঙ্গের পর এবার দক্ষিণবঙ্গে প্রশাসনিক বৈঠক করলেন পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়। আর এবারেও রাজ্যের শাসক দলের জনপ্রতিনিধিদের অনুপস্থিতি রাজ্যপালের নজর এড়িয়ে গেল না।রাজ্যপালের গুরুত্বকে অমর্যাদা দেওয়া হচ্ছে এমনই গুরুতর অভিযোগ আনলেন খোদ রাজ্যপাল জগদীশ ধনকড় রাজ্য পুলিশের ডিজির কাছে। মঙ্গলবারে উত্তর ২৪ পরগণার মালঞ্চ এবং ধামাখালিতে দুটি প্রশাসনিক বৈঠক পূর্বনির্ধারিত ছিল। কিন্তু এই প্রশাসনিক বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন না জেলার জেলাশাসক চৈতালি চক্রবর্তী। বৈঠকের আমন্ত্রণ জানানো হলেও গরহাজির ছিলেন বসিরহাটের সাংসদ নূসরত জাহান, সন্দেশখালির বিধায়ক সুকুমার মাহাতো। ঘটনায় ক্ষুব্ধ রাজ্যপাল জগদীশ ধনকড় জানিয়েছেন, জেলাশাসক না আসার কারণ তিনি নিজে খতিয়ে দেখবেন। বিষয়টি দিল্লির নজরে নিয়ে আসা হবে এমনটাই জানা যাচ্ছে সূত্র মারফৎ।
 রাজ্যপালের প্রশাসনিক বৈঠকে প্রটোকল অনুসারে গার্ড অফ অনার দেওয়া হয়। এই প্রশাসনিক বৈঠকে উত্তর ২৪ পরগণার জেলাশাসক উপস্থিত না থাকলেও জেলার অতিরিক্ত জেলাশাসক সুবীর কুহ্নাম উপস্থিত হয়েছিলেন। বৈঠকে রাজ্যপাল বিএসএফের সঙ্গে সীমান্ত সমস্যা নিয়ে আলোচনা করেন। মুর্শিদাবাদে বিজিবির হাতে এক বিএসএফ জওয়ানের মৃত্যুর প্রসঙ্গ আলোচনায় উঠে আসে। এই ইস্যুতে রাজ্যপাল রাজ্য সরকারের ভূমিকার সমালোচনা করে। অতিরিক্ত জেলাশাসক, রাজ্য পুলিশের ডিজি, বিএসএফের আইজির সঙ্গে বৈঠক করেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়। শাসক দলের জনপ্রতিনিধিদের রাজ্যপালের ডাকা প্রশাসনিক বৈঠকে না আসার কারণ নিয়ে ক্ষুব্ধ রাজ্যপাল জানিয়েছেন,'আমি জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে কথা বলব বলেছিলাম। কিন্ত জেলাশাসক চারদিন পরে জানাচ্ছেন, রাজ্য সরকারের অনুমতি পাওয়া যায়নি।
 রাজ্য সরকারের অনুমতি ছাড়া তারা এক পাও এগোবেন না। তাদের যুক্তি মুখ্যমন্ত্রী উত্তরবঙ্গ সফরে গিয়েছেন। সঙ্গে জনপ্রতিনিধিরা রয়েছেন। এটা ভীষণ উদ্বেগের বিষয়।' এখানেই থেমে না থেকে পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল জানিয়েছেন, জনপ্রতিনিধিদের না আসার কারণ বিষয়ে রাজ্য সরকারের কাছ থেকে জবাব তলব করবেন। রাজ্যপাল রাজ্য সরকার দ্বৈরথ বেড়েই চলেছে। রাজ্যপাল নিয়মতান্ত্রিক শাসক প্রধান, কেন্দ্রের 'এজেন্ট' হিসেবে কাজ করেন, রাজ্য ক্যাবিনেটের সিদ্ধান্তের ওপর রাজ্যপালের কার্যকারিতা নির্ভর করে থাকে। এমনই যুক্তি পাল্টা যুক্তির মোড়কে রাজ্যপালের ক্ষমতা এবং পদমর্যাদা বিষয়টি জড়িত। এখানে বিতর্কের শেষ নেই। যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোতে এই বিতর্ক চলেই আসছে।
Loading...

No comments

Theme images by enjoynz. Powered by Blogger.