Header Ads

এবার কলকাতার আকাশে উড়বে সুখোই থার্টি এমকেআই এবং হক বিমান

নজরবন্দি ব্যুরোঃ বায়ুসেনার নতুন কোউশল এবার দেখা যাবে কলকাতার আকাশে। কলকাতা বিমানবন্দর বিশেষ ভাবে গুরুত্ব পেতে চলেছে ভারতীয় বায়ুসেনার এই নতুন কোউশলে। ১৬ অক্টোবর বুধবার দমদম বিমানবন্দর থেকে উড়তে দেখা গেল বায়ুসেনার যুদ্ধবিমান সুখোই থার্টি এমকেআই। বুধবার সকাল সকাল কলকাতার আকাশে বিমানের যুদ্ধ গর্জন শুনে অনেক ভাবতে পারেন দেশে যুদ্ধ লেগেছে বা কোনো আপতকালিন সময় এসেছে। কিন্তু বিষয় এমনটা একদমই নয়। এ রাজ্যের বেশ কিছু সামরিক বিমানঘাটি আছে ব্যারাকপুর, পানাগড়, কলাইকুন্ডা, হাসিমারাতে। এই গুলি পরিচিত হওয়ার কারণে এখানে আক্রমণ হওয়ার সম্ভাবনাও বেশি। আক্রমণের পাল্টা জবাব আক্রমণে দেওয়ার জন্য বায়ুসেনার এই নতুন রণকৌশল। এই রণকৌশলকে বাস্তবায়নের জন্য ভারতীয় বিমানবাহীর ইস্টার্ন এয়ার কম্যান্ড ছয়টি অসামরিক বিমানঘাটি কে বেছে নিয়েছেন।
কলকাতা ও অন্ডাল, অসমের গুয়াহাটি, অরুনাচল প্রদেশের পাসিহাট, নাগাল্যান্ডের ডিমাপুর, মাণিপুরের ইম্ফল। কিন্তু বিষয়টা খুব একটা সহজ নয়। অসামরিক বিমান ওঠা নামা আর যুদ্ধকালিন পরিস্থিতিতে সামাল দেওয়া দুটি বিষয় এক নয়। এর জন্য প্রয়োজন সঠিক প্রশিক্ষণের। রোজনামচার ব্যস্ততার সময়ে হঠাৎ আক্রমণ হলে সেই পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার জন্যও অভিজ্ঞতার প্রয়োজন। এই সমস্ত বিষয়ে নজর দেওয়ার জন্য বায়ুসেনার মহরা শুরু করেছে। এই মহরা দু দফায় হবে। প্রথমটি সময় ১৬ অক্টোবর থেকে ১৯ অক্টোবর এবং পরেরটি ২৯ অক্টোবর থেকে ১ নভেম্বর। এই মহরা লক্ষ্য, যুদ্ধকালীন পরিস্থিতিতে অসামরিক বিমানঘাঁটিগুলিতে সামরিক বিমান ওড়ানোর সক্ষমতা গড়ে তোলা।এই মহড়ায় জোর দেওয়া হচ্ছে ব্যস্ত বিমানবন্দর থেকে যুদ্ধবিমান ওড়ানোর ক্ষেত্রে অসামরিক বিমানকর্মীদের সঙ্গে সেনাকর্মীদের সমন্বয় সাধনে। যুদ্ধকালীন অবস্থায় যাতে অসামরিক বিমানকর্মীরাও সহজেই বায়ুসেনার অভিযানের অঙ্গ হয়ে উঠতে পারেন, মহড়ায় চলছে তারও প্রশিক্ষণ।বায়ুসেনার অন্যতম উন্নত যুদ্ধবিমান সুখোই থার্টি এমকেআই এবং প্রশিক্ষক বিমান হক ১৩২ এই মহড়ায় অংশগ্রহণ করছে। তবে কলকাতা থেকে যুদ্ধবিমান ওঠানামা এই প্রথম নয়, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় রেড রোড থেকে নিয়মিত উড়ত মিত্রশক্তির যুদ্ধবিমান।
Loading...

No comments

Theme images by lishenjun. Powered by Blogger.