তুরস্কের আগ্রাসনে সিরিয়াতে ঘরছাড়া বহু মানুষ

নজরবন্দি ব্যুরো: মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে তুরস্কের বিমানবাহিনীর সিরিয়া আক্রমণ। এই আগ্রাসনের জেরে সিরিয়া তুরস্ক সীমান্ত লাগোয়া রাস আল আইন এবং দরবসিয়া শহর প্রায় জনশূন্য হতে চলেছে। ঘরছাড়া প্রায় ৬৫ হাজার মানুষ। ঘড়ির কাটা যত গড়াচ্ছে ঘরছাড়া মানুষের সংখ্যাটাও হু হু করে বেড়ে চলেছে। তুরস্কের সেনাবাহিনীর টার্গেট কুর্দ জঙ্গিরা। কিন্তু তুর্কি সেনার আগ্রাসনে এই সীমান্ত লাগোয়া ৫ লক্ষ মানুষ এখন ঘরছাড়া হওয়ার আতঙ্কে দিন গুজরাল করে চলেছে। এই আগ্রাসনের জেরে সীমান্ত লাগোয়া বেশ কয়েকটি হাসপাতাল বন্ধ হয়ে গিয়েছে। আকাশে বারুদের পোঁড়া গন্ধ, আর নিরীহ সিরিয়াবাসীর হাহাকার। আট থেকে আশি নারী পুরুষ নির্বিশেষে সামান্য জিনিসপত্র গুছিয়ে নিয়ে অজানা ভবিষ্যৎ এর পথে হাটতে শুরু করে দিয়েছে। তুর্কি বিমানবাহিনী লাগাতার বোমাবর্ষণ করে চলেছে।
 অসমর্থিত সূত্রে জানা যাচ্ছে, তুর্কি আগ্রাসনে ৯ জন সাধারণ মানুষের মৃত্যু খবর সামনে এসেছে। আহতের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। ইতিমধ্যেই ইটালি, ভারত এমনকি রাষ্ট্রপুঞ্জ সিরিয়া সীমান্তে তুর্কি আগ্রাসন নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। ন্যাটোর তরফ থেকে তুরস্কের সেনাবাহিনীকে সংযত হওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। আঙ্কারা জানিয়েছে, এই অভিযানে এখনও পর্যন্ত ৩৪২ জন কুর্দ জঙ্গি খতম করা হয়েছে। মার্কিন রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্প এই সমস্যায় মার্কিন হস্তক্ষেপের জোড়ালো ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন, তুর্কি সেনাদের আগ্রাসনে কুর্দরা পাহাড় থেকে সরে গেলে আইএস জঙ্গিরা জেল থেকে পালিয়ে সিরিয়াকে নিজেদের স্বর্গরাজ্য বানিয়ে তুলবে। ফলে বিপদ আরো বাড়বে। সিরিয়াতে আইএস জঙ্গিরা নিজেদের ঘাটি শক্ত করেছিল। কিন্তু তুরস্কের আগ্রাসনে ফের আইএস জঙ্গিরা নিজেদের হারানো জমি ফিরে পেতে পারে এমন আশঙ্কায় কাঁপছে গোটা দুনিয়া।
Loading...

No comments

Theme images by caracterdesign. Powered by Blogger.