Header Ads

সাত সকালেই মহা ধামাকা মহারাষ্ট্রে! মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নিলেন বিজেপির দেবেন্দ্র ফড়নবীশ!

নজরবন্দি ব্যুরোঃ সাত সকালেই মহা ধামাকা মহারাষ্ট্রে। ত্রিপাক্ষিক বৈঠকের যাবতীয় জল্পনায় জল ঢেলে, শনিবার সকাল হতে না হতেই রাজভবনে গিয়ে দ্বিতীয়বারের জন্য মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নিলেন বিজেপির দেবেন্দ্র ফড়নবীশ। উপ-মুখ্যমন্ত্রী শপথ নিয়েছেন এনসিপির অজিত পাওয়ার। তিনিও এদিন সকালে শপথ নিয়েছেন। রাজ্যপাল ভগৎ সিং কেশিয়ারি তাদের শপথবাক্য পাঠ করিয়েছেন। মহারাষ্ট্রের সরকার গঠনে শুক্রবারই চূড়ান্ত হয়েছিল কংগ্রেস, এনসিপি ও শিবসেনা জোট। ঘোষণা করা হয় আগামী পাঁচ বছর জোটের তরফে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হবেন উদ্ধব ঠাকরে। উপ-মুখ্যমন্ত্রী পদ আড়াই বছর করে পাবেন  কংগ্রেস ও এনসিপি। আজ জোটের আনুষ্ঠানিক ঘোষণার জন্য  সাংবাদিক বৈঠকের ডাক দেওয়া হয় তিন দলের তরফে। কিন্তু, রাত গড়াতেই চূড়ান্ত নাটকীয় মোড় মারাঠা রাজ্যের রাজনীতিতে। এদিন সকালেই রাজভবনে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথবাক্য পাঠ করেন দেবেন্দ্র ফড়নবীশ। তাঁকে সমর্থন জানান এনসিপি নেতা অজিত পাওয়ার। তিনিও শপথ নেন উপ-মুখ্যমন্ত্রী পদে। তবে, রাজভবনে এদিন অন্য কোনও এনসিপি নেতা বা বিধায়ককে দেখা যায়নি। শরদ পাওয়ার টুইটে জানিয়েছেন, ‘সরকার গঠনে বিজেপিকে সমর্থন অজিত পাওয়ারের ব্যক্তিগত সিদ্ধান্ত। এনসিপি দলগতভাবে এই সিদ্ধান্তের সঙ্গে সহমত নয়। দল কোনওভাবেই এই সরকারকে সমর্থন বা অনুমোদন দেবে না।’ তবে, বিজেপি নেতা গিরিশ মহাজনের দাবি, ‘আজিত পাওয়ার সব বিধায়কদের সাক্ষরিত একটি চিঠি রাজ্যপালকে দিয়েছেন। তার মানে সব এনসিপি বিধায়করা বিজেপির সঙ্গেই রয়েছেন।’ এই ঘটনার পরই কংগ্রেস নেতা  অভিষেক মনু সিংভী টুইটে শরদ পাওয়ারকে কটাক্ষ করে লেখেন, ‘পরাবাস্তব। ত্রিপাক্ষিক বৈঠক তিন দিনের বেশি চালিয়ে যাওয়া উচিত হয়নি। সেই সুযোগটাই কাজে লাগানো হয়েছে। এই ঘটনা সত্যি হলে তা অভিনব। পাওয়ারজী তুসি গ্রেট হো।’ রাজ্য রাজনীতির এই নয়া মোড়ে তোপ দেগেছেন শিবসেনা মুখপাত্র সঞ্জয় রাউত। তিনি বলেছেন, ‘রাতের অন্ধকারে অপরাধ সংগঠিত করেছে রাজভবন। তবে শিবসেনা শক্তভাবেই নিজের সিদ্ধান্তে অনড়। আজ উদ্ধব ঠাকরে ও শরদ পাওয়ার বৈঠক করবেন, পরে যৌথভাবে সংবাদিকদের  মুখোমুখি হবেন।’ ফের ক্ষমতার চূড়ায় বসে ফড়নবীশ বলেন, ‘আমাকে ফের সুযোগ দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ। শিবসেনা জনাদেশ ভঙ্গ করেছে। রাজ্যে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি থাকা কখনই কাম্য নয়। রাজ্যবাসী পোক্ত সরকারের পক্ষে রায় দিয়েছিলেন। আমরা সেই লক্ষ্য পূরণ করতে পারব বলে মনে করছি।' শপথের পরেই দেবেন্দ্র ফড়নবীশকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। টুইটে  তিনি লিখেছেন, ‘আমি নিশ্চিত দেবেন্দ্র ফড়নবীশ ও অজিত  পাওয়ার সযত্নে মহারাষ্ট্রের উজ্জ্বল ভহিষ্যতের জন্য কাজ করবেন।’

No comments

Theme images by lishenjun. Powered by Blogger.