Header Ads

দুধওয়ালা রাজিবের সাহায্যে জিয়াগঞ্জের খুনের মামলায় একধাপ এগোল পুলিশি তদন্


নজরবন্দি ব্যুরোঃ জিয়াগঞ্জের বাসিন্দা প্রাথমিক স্কুলের শিক্ষক হত্যাকান্ড মামলায় একধাপ এগোল পুলিশ। হত্যার প্রত্যক্ষদর্শী দুধওয়ালা রাজিব এর সাহায্যেই এটা সম্ভব হয়েছে। অভিযুক্ত উৎপল বেহরাকে টিআই প্যারেডে শনাক্ত করলেন মামলার একমাত্র প্রত্যক্ষদর্শী রাজিব । এর ফলে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমানে অনেকটাই সুবিধা হবে তদন্তকারী পুলিশদের।
 গত ৮ অক্টোবর মুর্শিদাবাদের জিয়াগঞ্জ এলাকার লেবুবাগানের বাড়িতে খুন হন পেশায় প্রাথমিক শিক্ষক বন্ধুপ্রকাশ পাল তার অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী এবং পুত্র। খুন করে পালানোর আগেই তাকে দেখে নেয় দুধওয়ালা রাজিব দাস। তিনি ঘটনাটি প্রথমে সকলকে জানান। সোমবার লালবাগ সংশোধনাগারে উৎপল বেহরাকে সনাক্ত করে প্রত্যক্ষদর্শী রাজিব দাস। খুনের কারণ হিসাবে জানা যায়, বিমার টাকা আত্মসাৎ করার রাগেই উৎপল সপরিবার ওই শিক্ষককে খুন করে। খুনের পরে রাজিব দাস পুলিশকে জানায় গেঞ্জি প্যান্ট পরে এক ব্যক্তি কে সে শিক্ষকের বাড়ি থেকে পালিয়ে যেতে দেখে। সেই কারনেই তাকে টিআই প্যারেডে ডাকা হয় খুনির সনাক্তকরনের জন্য।
সূত্রের খবর, টিআই প্যারেডে অন্যান্য কয়েদিদের সাথে উৎপল কে দাড় করিয়ে দিলে কিছুক্ষণের মধ্যেই রাজিব দাস অভিযুক্তকে সনাক্ত করে নেয়। যদিও পুলিশের তরফ থেকে সংবাদমাধ্যমকে এখন কিছু জানান হয় নি। হত্যাকাণ্ডের পর গত ১৫ অক্টোবর উৎপল বেহরা গ্রেফতার হয়। পুলিশ সূত্রে খবর, শুরুতে প্রাথমিক ভাবে দোষ স্বীকার করে তদন্তে সাহায্য করেছিল উৎপল। কিন্তু সম্প্রতি গোপন জবানবন্দির সময়ে আদালতে জবানবন্দি দিতে বেঁকে বসে সে, ফলে জবানবন্দি নথিভুক্ত করতে পারেন নি বিচারক। তবে দুধ বিক্রেতা রাজিব এবং শিক্ষকের বাড়ির পপরিচারিকা সুনিতা সরকার গোপন জবানবন্দি দিয়েছেন। কিন্তু এই বিষয় নিয়ে তারা কোন কথা বলতে চাননি। রাজিব দাস বলেছেন, " আমার যা বলার আমি আদালতে বলবো। "
Loading...

No comments

Theme images by enjoynz. Powered by Blogger.